মুজিবনগর সরকারঃ স্বাধীনতা সংগ্রামের মর্যাদা রক্ষার অনন্য পদক্ষেপ

স্কোয়াড্রন লিডার (অবঃ) সাদরুল আহমেদ খান: ১৯৭১ সালের ১০ই এপ্রিল মুজিবনগর সরকার নামে পরিচিত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকার গঠিত হয় এবং ১৭ এপ্রিল তৎকালীন কুষ্টিয়া জেলার মেহেরপুর মহকুমায় শপথ গ্রহণ করে। এটি ছিল বাংলাদেশের প্রথম সরকার। ১৯৬৮ সালের আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার সাথে মুজিবনগর সরকারের রয়েছে গভীর যোগসূত্র। বঙ্গবন্ধু একটি স্বাধীন দেশের জন্য পরিকল্পনা করেছি...

ঐতিহাসিক গণঅভ্যুত্থান দিবসে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এমপি’র বিবৃতি

ঐতিহাসিক গণঅভ্যুত্থান দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি আজ এক বিবৃতি প্রদান করেছেন। বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের এমপি বলেন, বাঙালির মুক্তি সংগ্রামের ইতিহাসে ২৪ জানুয়ারি এক ঐতিহাসিক দিন। এই দিনে তৎকালীন স্বৈরশাসক আইয়ুব খানের পতনের লক্ষ্যে দুর্বার গণআন্দোলন শ...

২৪ শে জানুয়ারি ঐতিহাসিক গণঅভ্যুত্থান দিবস

আগামীকাল ২৪ জানুয়ারি ঐতিহাসিক গণঅভ্যুত্থান দিবস। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবিসংবাদিত নেতৃত্বে বাঙালির দীর্ঘ স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে ৬৯’-এর গণঅভ্যুত্থান একটি ঐতিহাসিক ঘটনা। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষিত বাঙালির মুক্তির সনদ ৬-দফা ভিত্তিক গণ-আন্দোলনের আদর্শকে ধারণ করে অগ্রসরমান সংগ্রামের পথপরিক্রমায় ১৯...

আগরতলা মামলা: স্বাধীনতার জন্য বঙ্গবন্ধুর সশস্ত্র প্রচেষ্টার প্রামাণ্য দলিল

১৯৬৬ সালে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ঐতিহাসিক 'ছয় দফা' ঘোষণার পর বাঙালি জাতির একক নেতা হিসেবে আবির্ভূত হন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। মার্চের কাউন্সিলে দলের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর, 'বাঙালির মুক্তির সনদ' ছয় দফার পক্ষে জনমত গড়ে তুলতে দেশজুড়ে ছুটতে থাকেন বঙ্গবন্ধু। সেই ধারাবাহিকতাতেই আপামর জনতার পাশাপাশি, সরকারি কর্মকর্তা ও সেনাসদস্যদের একটি অংশ বঙ্গব...

৬ দফা আন্দোলনে প্রবাসীদের সহযোগিতা

সুলতান মাহমুদ শরীফঃ ১৯৪৭ সালের আগস্ট মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় বিভক্ত হিন্দু মুসলমানদের জন্য পৃথক পৃথক রাষ্ট্র পাকিস্তান ও হিন্দুস্তান সৃষ্টি হলো। হিন্দুস্তানকে নাম পরিবর্তন করে তারা ভারতবর্ষ নাম দিলো। ভারত ভাগের অনেক আগে ১৯০৬ সালে ঢাকায় নবাব স্যার সলিমুল্লাহর তত্ত্বাবধানে মুসলিম লীগ সংগঠন প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৪০ সালের ২৩শে মার্চ লাহোরে মুসলিম লীগ সম্মেলনে...

ছয় দফাঃ বাঙালির মুক্তির সনদ | ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস উপলক্ষে বিশেষ ওয়েবিনার

'ছয় দফাঃ বাঙালির মুক্তির সনদ' | ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস উপলক্ষে বিশেষ ওয়েবিনার আলোচকবৃন্দঃআমির হোসেন আমু এমপিকেন্দ্রীয় ১৪ দলের সমন্বয়ক ও মুখপাত্রএবং উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ডঃ রেহমান সোবহানস্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত অর্থনীতিবিদ, এবং সদস্য, প্রথম পরিকল্পনা কমিশন অজয় দাশগুপ্তএকুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক অধ্যাপক শান্তনু মজুমদারশিক্ষক, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগঢাকা ব...

“কতো নেছো, কতো দেবা, কবে যাবা?”

জয়ন্ত বসাকঃ ‘‘আপন ধন পরকে দিয়ে / দৈবজ্ঞ মরে কাঁথা বয়ে“ (পূর্ব পাকিস্তান আইন পরিষদে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণ, ১৯৫৭)। পশ্চিম পাকিস্তানী আধিপত্যবিহীন একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র অর্জন ও অর্থনীতিতে স্বয়ংসম্পূর্ণ একটি সমাজ প্রতিষ্ঠাই ছিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমগ্র জীবনের সাধনা। ১৯৬৬ সালে সেই স্বাধীনতারই রূপরেখা প্রণয়ন করেন ...

ছয় দফাঃ বাঙালি জাতির স্বাধিকার ও স্বাধীনতার সাঁকো রচে দিলো যে দাবি

মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন সম্রাটঃ একটি গাভী সতেজ সবুজ ঘাস খাচ্ছে পূর্ব পাকিস্তানে, আর সেই গাভীটির দুধ দোহন হচ্ছে পশ্চিম পাকিস্তানে। পাকিস্তানে পূর্ব বাংলার মানুষ কীভাবে শোষিত-বঞ্চিত হচ্ছে, ছয় দফার প্রচারকালে এমন এক পোস্টারে তা প্রতীকী অর্থে দেখানো হয়েছিল। ছয় দফা হলো নিষ্পেষিত ও নিপীড়িত বাঙালির পাকিস্তানি দুঃশাসন থেকে মুক্তিচেতনার বহিঃপ্রকাশ।সরাসরি যদিও স্বাধীনতার কথা বল...

বঙ্গবন্ধুর সংগ্রাম, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পটভূমি ও ৬ দফা

শাহাদাৎ হোসেন: ঐতিহাসিক ৭ জুন আজ। বাঙালি জাতির মুক্তির সনদের ৬ দফা দিবস। বাঙালি জাতির মুক্তি সংগ্রামের ইতিহাসে এক অনন্য প্রতিবাদী ও আত্মত্যাগের সংগ্রামী দিন এটি। স্বাধীনতার মহান স্থপতি শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক জীবনের অন্যতম গৌরবময় অধ্যায় হলো এই ৬ দফা আন্দোলন। এই ৬ দফা আন্দোলন দিয়েই শেখ মুজিবুর রহমান পরিচিতি পান বঙ্গবন্ধু হিসেবে। বাঙালির ইতিহাসে হাজার বছরের...

৬ দফাই এক দফাঃ আমাদের স্বাধীনতা, ঘুরিয়ে বলা শুধু

মহসিন খানঃ ১৭৫৭ সালে পলাশীর প্রান্তরে পরাজিত হওয়ার পর প্রায় ২০০ বছর কেটেছে শোষণ, নিষ্পেষণ, নির্যাতনে। ১৯৪৭ সালে একটি অনিয়ন্ত্রিত ইতিহাসের শেষ মিনিটের বিশেষ ছাড়ের মাধ্যমে জন্মলাভ করে পাকিস্তান ও ভারত নামক দুটি রাষ্ট্র। দেশ ভাগ হলেও পূর্ব বাংলার মানুষের মাথার উপর থেকে আকাশের কালো মেঘ তখনো কাটেনি। প্রায় ১২০০ মাইল দূরের পশ্চিম পাকিস্তান সরকার এ দেশের মানুষের উপর অ...

৬ দফা, অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও বাস্তবতা

বিনয় দত্তঃ ১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধু ৬ দফা ঘোষণা করেছেন। এই ৬ দফা সেইসময় সবার কাছে যে স্পষ্ট ছিল তা কিন্তু নয়। এইটা বঙ্গবন্ধু বুঝতে পেরেছিলেন তাই সেইসময় ‘আমাদের বাঁচার দাবি: ৬-দফা কর্মসূচী’ শীর্ষক একটি প্রচারপত্র প্রকাশ করা হয়। এটি প্রকাশিত হয় ৪ঠা চৈত্র, ১৩৭২; ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৬। এই প্রচারপত্র প্রকাশের উদ্দেশ্য হলো, যাতে সবাই ৬ দফা সম্পর্কে সম্যক ধারণা রাখে এবং এত...

বঙ্গবন্ধুর ছয় দফা: বাঙালি জাতির মুক্তির সনদের পূর্বাপর

প্রকৌশলী আজিজ সারতাজ জায়েদ: পাকিস্তানের অবৈধ রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আইয়ুব খান ১৯৫৮ সাল থেকে ক্যু দে-তা’র বদৌলতে ক্ষমতা কুক্ষীগত করেন ১৯৬৯ সালের ২৬ মার্চ অবধি। পাকিস্তান মুসলিম লীগের একাংশকে নিজের আয়ত্বে এনে তিনি নতুন দল বানালেন পাকিস্তান মুসলিম লীগ (কনভেনশন) এবং ২ জানুয়ারি, ১৯৬৫ তারিখের অনুষ্ঠিতব্য ইলেক্টোরাল কলেজ পদ্ধতির নির্বাচনে প্রার্থী হলেন সে দলের প্রতীকে...

দফা তো একটাই, একটু ঘুরাইয়া কইলাম...

অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ ছেষট্টির আগে রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে আরো ‘অ্যাজেন্ডা’ ছিল। কিন্তু ৬ দফা ঘোষণা দেওয়ার পর ‘জাতীয়তাবাদে’র বিষয়টি একমাত্র অ্যাজেন্ডায় পরিণত হয়। এই এক ‘অ্যাজেন্ডা’ দিয়েই আন্দোলন-সংগ্রাম করে একাত্তরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে স্বাধীনতা অর্জন করে বাংলাদেশ।ো ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পর প...

বঙ্গবন্ধুর ছয় দফা; মূলত বাঙালির বাঁচার দাবি

আব্দুর রহমান: বঙ্গবন্ধুর ছয় দফা বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে একটি ঐতিহাসিক এবং গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। ১৯৬৬ সালের ৫ ও ৬ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের লাহোরে অনুষ্ঠিত বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর এক সম্মেলনে আওয়ামী লীগের পক্ষে দলের সাধারণ সম্পাদক শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষে ৫ ফেব্রুয়ারি লাহোরে 'ছয় দফা দাবি' পেশ করেন। ৪ ফেব্রুয়ারি শেখ মুজিব পাকি...

বঙ্গবন্ধু, বাঙালি ও বাঙালির বাঁচার দাবি

সরকার মোঃ সব্যসাচী: ধরণীর বুকে লাল-সবুজ পতাকা নিয়ে বাংলাদেশ ভূমিষ্ঠ হয়েছিলো যাঁর হাতে হাত রেখে –সে নামটি হলো শেখ মুজিবুর রহমান। যাঁর যাপিত জীবনদর্শন পাঠ করলে সন্ধান মেলে বাংলাদেশ ভূমিষ্ঠের অমর ইতিহাস। চোখে দৃশ্যমান হয়, পাকিস্তানের বুক চিরে বাঙালির স্বাধীনতার অংকুরায়নের সংগ্রামী প্রতিচ্ছবি। প্রসঙ্গতই, বঙ্গদেশের পূজনীয় ইতিহাসবিদরা ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদ...

ছয় দফাঃ বাঙ্গালির ম্যাগনাকার্টা

ফারহান সাদিকঃ ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট পাকিস্তান সৃষ্টির পর থেকেই পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের ওপর শুরু হয় অমানবিক শোষণ, বঞ্চনা, নির্যাতন এবং ক্রমবর্ধমান হারে বেড়ে ছিল বৈষম্য। এদেশের মাটি উর্বর হওয়ায় পূর্ব পাকিস্তান পরিণত হয় পশ্চিম পাকিস্তানী শিল্পপতি ও ব্যবসায়ীদের কাঁচামালের যোগানদাতা হিসেবে। গুটিকয়েক শিল্পকারখানা প্রতিষ্ঠিত হলেও সেগুলোর নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনা পর্ষদ ছিল পশ্চিম ...

বঙ্গবন্ধুর সংগ্রাম, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পটভূমি ও ছয় দফা

শিবু দাশ সুমিতঃ তিনি রাজনীতির কবি, নিউইয়র্ক ম্যাগাজিনের মতে তিনি 'পয়েট অব পলিটিক্স।'হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর অপর নাম বাংলাদেশ। গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার বাইগার নদীর তীরে খোকা নামক যে ছেলেটি ১৯২০ সালের ১৭ই মার্চ শেখ লুৎফর রহমান এবং সায়েরা খাতুনের ঘর আলো করে জন্মগ্রহণ করেছিল সেই ছেলেটিই একসময় হয়ে উঠেছিল সাত কোটি নির্যা...

ছয় দফাঃ বিস্মৃত পঙতিমালা

মনিরুল ইসলামঃ ১৮৮৫ সালে সর্বভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে ভারত উপমহাদেশের জনগণের প্রাতিষ্ঠানিক রাজনৈতিক চর্চার শুরু। এরপর বহু নেতা, বহু দল জনগণের পক্ষ থেকে অনেক দাবীদাওয়া উত্থাপন করেছেন। কিন্তু কোনটাই এত অল্প সময়ে এত বিপুল সাড়া জাগাতে পারেনি, ব্যাপক জনসমর্থন পায়নি এবং অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছতে পারেনি, যা বঙ্গবন্ধুর ছয় দফার ক্ষেত্রে ঘটেছে। কিন্তু কেন? এমন নয়...

ছয় দফা : স্বাধীন বাংলাদেশের 'অগ্রিম জন্মসনদ'

বোরহান উদ্দিন: বঙ্গবন্ধুর ছয় দফা কর্মসূচি ছিল বাঙালির জাতীয় মুক্তির সনদ। ১৯৪৭ সালে ভারত বিভক্তির পর, পাকিস্তান রাষ্ট্রে বাঙালিরা কখনো সমান নাগরিক অধিকার ভোগ করতে পারেনি। শুরু থেকেই পূর্ব বাংলার ওপর পশ্চিম পাকিস্তানের ঔপনিবেশিক শাসন–শোষণ কায়েম হয়। সেই রাষ্ট্রে বাঙালিদের সমস্যায় পড়ার মূল কারণ ছিল জাতিসত্তাগত। ফলে শুরুতে সাংস্কৃতিক নিপডীড়ন দিয়ে শুরু হলেও ধীর...

ছয় দফা কর্মসূচি: বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের ভিত্তি

সাখাওয়াত মজুমদারঃ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬৬ সালে নির্যাতিত, নিষ্পেষিত, অধিকারবঞ্চিত বাঙারির পক্ষে যে ঐতিহাসিক ৬-দফা দাবি পেশ করেন; তা বাঙালির বাঁচার দাবি বা ম্যাগনাকার্টা নামে পরিচিত। বঙ্গবন্ধুর ৬-দফা কর্মসূচি সমগ্র বাঙালি জাতির চেতনার মূলে বিস্ফোরণ ঘটায়। ছয় দফা ছাড়া জাতি হিসেবে টিকে থাকার অন্যকোনো বিকল্পই ছিল না আর। ঐতিহাসিক এই ছয় দফার ভিত্ত...

ছবিতে দেখুন

ভিডিও