মুজিবনগর সরকারঃ স্বাধীনতা সংগ্রামের মর্যাদা রক্ষার অনন্য পদক্ষেপ

1077

Published on এপ্রিল 17, 2022
  • Details Image

স্কোয়াড্রন লিডার (অবঃ) সাদরুল আহমেদ খান:

১৯৭১ সালের ১০ই এপ্রিল মুজিবনগর সরকার নামে পরিচিত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকার গঠিত হয় এবং ১৭ এপ্রিল তৎকালীন কুষ্টিয়া জেলার মেহেরপুর মহকুমায় শপথ গ্রহণ করে। এটি ছিল বাংলাদেশের প্রথম সরকার। ১৯৬৮ সালের আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার সাথে মুজিবনগর সরকারের রয়েছে গভীর যোগসূত্র। বঙ্গবন্ধু একটি স্বাধীন দেশের জন্য পরিকল্পনা করেছিলেন এবং এর কোন কোন পরিকল্পনা ছিল না। বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে ডেপুটেশনের সময় আমি তৎকালীন ডেপুটি স্পিকার কর্নেল(অবঃ) শওকত আলী এমপির সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করেছি। আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার ব্যাপারে তিনি আমাকে তার দুঃসাহসিক কাজের ভেতরের অনেক গল্পই শোনান। ১৯৬৮ সালের আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় তিনি বঙ্গবন্ধুর সাথে অন্যতম প্রধান আসামী ছিলেন। বঙ্গবন্ধুসহ সকল আসামীকে গ্রেফতার করে ঢাকা সেনানিবাসে আটক রাখা হয়েছিল।তখন বাংলার মানুষ ক্ষোভে ফেটে পড়ে অভিযুক্তদের মুক্তির দাবিতে।

১৯৬৯ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর হেফাজতে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার একজন অভিযুক্ত সার্জেন্ট জহুরুল হক নিহত হন। এই খবরটি বজ্রপাতের মতো এসেছিল, পাকিস্তান সেনাবাহিনীর এমন কাপুরুষোচিত কাজের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী ধর্মঘট, বিক্ষোভ ও অবরোধ চলছিল। অন্য কোনো বিকল্প না পেয়ে আইয়ুব খান সরকার ১৯৬৯ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি ষড়যন্ত্র মামলা বাতিল করে এবং সকল আসামিকে মুক্তি দেয়। এটা ছিল আইয়ুব খানের নৈতিক পরাজয়। অনেক সময় কর্নেল (অবঃ)শওকত আলী আমাকে বলেছিলেন যে আগরতলা ষড়যন্ত্রই আসল। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১১ তারিখে, কর্নেল (অবঃ) শওকত আলী জাতীয় সংসদে বলেছিলেন, "আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলাটি মিথ্যা ছিল না এবং অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলি সত্য ছিল।" বঙ্গবন্ধু ১৯৬২ সাল থেকে একটি নতুন দেশের স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন, তিনি একটি স্বাধীন দেশ গঠনে দিকনির্দেশনা দেন। জাতির পিতা নতুন দেশের সমস্ত কলম ছবি তাঁর পরিকল্পনায় আঁকেন, তিনি একটি দেশের জনসংখ্যা, সীমানা, সরকার ও সার্বভৌমত্বের সমস্ত মৌলিক উপাদানের পরিকল্পনা করেছিলেন।

বঙ্গবন্ধু স্নায়ুযুদ্ধের যুগে একজন চৌকস রাজনীতিবিদ ছিলেন, তিনি সচেতন ছিলেন যে পাকিস্তানিরা আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের বিচ্ছিন্নতাবাদী হিসাবে আখ্যায়িত করবে, তারা আমাদের মুক্তিযুদ্ধকে বিদ্রোহ বলে অপমান করবে। এজন্য বঙ্গবন্ধু নির্বাসনে একটি অস্থায়ী সরকারের পরিকল্পনা করেছিলেন। নির্বাসিত সরকার হল একটি অস্থায়ী সরকার যা নির্বাসিতদের দ্বারা বিদেশী ভূমিতে স্থানান্তরিত বা গঠিত হয় যারা তাদের দেশ স্বাধীন হলে দেশে ফিরে এসে শাসন করার আশা করে।

বঙ্গবন্ধু তার ঘনিষ্ঠ মিত্রদের সাথে আলোচনা করেন, দলের সেক্রেটারি তাজ উদ্দিন আহমেদ এবং আরও কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিকেও অবহিত করা হয়। কিন্তু দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ-পরবর্তী ভূ-রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে তিনি উদ্বিগ্ন ছিলেন, আবার তিব্বতের অভিজ্ঞতাও তাঁর মনে ছিল। কেন্দ্রীয় তিব্বত প্রশাসন (তিব্বতের নির্বাসিত সরকার) ১৯৫৯ সালে গঠিত হয়েছিল কিন্তু আজ পর্যন্ত তারা স্বাধীন হয় নাই। এ কারণেই বঙ্গবন্ধু নির্বাসনে অন্তর্ভুক্তিমূলক, সাংবিধানিক ও যৌক্তিক সরকারের পরিকল্পনা করেছিলেন। এই সরকারের মাধ্যমে আমরা একটি দেশ হিসাবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জন করব, জাতিসংঘ যুদ্ধে হস্তক্ষেপ করবে, আমাদের বন্দী যোদ্ধারা POW-এর মর্যাদা পাবে, আমাদের দেশবাসী শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নিবে তারা রেড ক্রস, ইউএনএইচসিআর ইত্যাদি আন্তর্জাতিক সংস্থা থেকে সাহায্য পাবে। বঙ্গবন্ধু তার অধীনস্থ নেতাদের নতুন দেশের মহাপরিকল্পনা, সশস্ত্র বিপ্লব, রাজনৈতিক চাপ এবং কূটনৈতিক বাস্তবতা ইত্যাদি সম্পর্কে অবহিত করেন। এভাবেই ৭ই মার্চের ভাষণটি সম্পূর্ণ যুদ্ধের জন্য একটি অপারেশন আদেশের মতো এসেছিল। ২৫ মার্চ ১৯৭১ পাকিস্তানি সেনারা বাঙালিদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ার জন্য "অপারেশন সার্চ লাইট" শুরু করে। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি বাহিনী জাতির সর্বোচ্চ নেতাকে গ্রেফতার করে।২৬ শে মার্চ প্রথম প্রহরে গ্রেফতার হওয়ার আগে বঙ্গবন্ধু ইপিআর ওয়্যারলেসের মাধ্যমে স্বাধীনতার ঘোষণা দেন । পরবর্তীতে তৎকালীন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ এবং মেজর জিয়াও (পরবর্তীতে মেজর জেনারেল)একই ঘোষণা দেন। সে অনুযায়ী বাংলাদেশকে স্বাধীন ঘোষণা করা হয়।

জাতির পিতা মনে স্থীর করে রেখেছিলেন তিনি আত্ম গোপনে না গিয়ে ঢাকার ধানমন্ডির বাসায় থাকবেন। কিন্তু তিনি আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি তাজউদ্দীন আহমদেসহ অন্য নেতাদের নির্দেশ দিয়েছিলেন যে, তাকে গ্রেফতার বা নিহত করা হলে আওয়ামী লীগ নেতারা ভারতে পাড়ি জমান এবং নির্বাসনে সরকার গঠন করেন। জাতির পিতা গ্রেফতার এড়াতে পারতেন কিন্তু তিনি জানতেন এটা পাকিস্তান সেনাবাহিনীর নৈতিক বিজয় হবে, পরের দিন থেকে পাকিস্তানিরা শেখ মুজিবের ওয়ান্টেড ছবি টাঙিয়ে দেবে। উল্টো তাকে গ্রেফতার বা হত্যা করলে তা হবে পাকিস্তানের জন্য বিপর্যয়। ১৯৫২ থেকে শুরু করে প্রতিটি গ্রেপ্তারের পর বঙ্গবন্ধু হয়েছিলেন আরও জনপ্রিয় এবং বাঙালিরা হয়েছিল আরও ঐক্যবদ্ধ। বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতারের পর যুদ্ধ আন্তর্জাতিক রূপ পায়। প্রবাসে থাকা বাংলাদেশ সরকার শেখ মুজিবকে মুক্ত করে নতুন দেশ "বাংলাদেশ"কে স্বীকৃতি দিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে আবেদন জানায়।

বঙ্গবন্ধুর পূর্ব নির্দেশ অনুযায়ী ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ থেকেই আওয়ামী লীগের নেতারা সরকার গঠন ও মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনার জন্য প্রতিবেশী সীমান্তের দিকে যাচ্ছিলেন। আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক তাজ উদ্দিন আহমেদ ও ব্যারিস্টার আমিরুল ইসলাম কুষ্টিয়া সীমান্ত অতিক্রম করলে বিএসএফ এর গোলক মজুমদার তাদের কলকাতায় নিয়ে যায়। ১লা এপ্রিল তাজ উদ্দিন আহমেদ ভারতীয় বিমান বাহিনীর এন-৩২ বিমানে দিল্লির উদ্দেশে যাত্রা করেন। তিনি ৩রা এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধীর সাথে দেখা করেন এবং বঙ্গবন্ধুর প্রবাসী বাংলাদেশ সরকার গঠন এবং মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনার পরিকল্পনা ব্যক্ত করেন। আলোচনার পর প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী নতুন দেশ ও নতুন সরকারকে তার পক্ষ থেকে সব ধরনের সমর্থনের আশ্বাস দেন।

দিল্লি থেকে কলকাতায় ফিরে তাজ উদ্দিন আহমেদ তার সহকর্মী আওয়ামী লীগ নেতাদের খুঁজতে থাকেন। বিভিন্ন সীমান্ত ও ক্যাম্পে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা নেতাদের এক জোট করা সহজ কাজ ছিল না। ভারতীয় বিমান বাহিনীর সাহায্যে তাজ উদ্দিন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্রিটিশদের তৈরি করা বিমানঘাঁটিতে এবং রানওয়েতে অবতরণ-উড্ডয়নের মাধ্যমে সমস্ত শরণার্থী শিবিরে যান । অবশেষে, তিনি এই শিবিরগুলি থেকে সমস্ত বিশিষ্ট নেতাদের নিয়ে আগরতলায় জড়ো হন। লক্ষ করবেন, এই আগরতলা সেই জায়গা যেখানে ১৯৬৮ সালে বঙ্গবন্ধু একটি নতুন দেশ গড়ার পরিকল্পনা ব্যক্ত করেছিলেন, ঠিক তিন বছর পর একই উদ্দেশ্য নিয়ে বাংলাদেশের প্রবাসী সরকারের সদস্যরা একই জায়গায় জড়ো হন। পাকিস্থান সরকার যথার্থই আগরতলা ষড়যন্ত্র উদঘাটনকারী আইএসআই গোয়েন্দা লেঃ কর্নেল শামসুল আলম কে সেদেশের সম্মানজনক সিতারা-ই-যুররত খেতাব দিয়েছিল ।

১৯৭১ সালের ১০ই এপ্রিল ১৯৭০ এর নির্বাচনে বিজয়ী সদস্যদের নিয়ে একটি সরকার গঠিত হয়। স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম এই সরকার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের প্রতিনিধিত্ব করে। তাই আমাদের বৈধ সরকারের দাবি ছিল ন্যায্য।

১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল তৎকালীন মেহেরপুর জেলায় নবগঠিত সরকার শপথ গ্রহণ করে। শপথ অনুষ্ঠানের স্থান ছিল বৈদ্যনাথতলায় একটি আমের বাগান যা নবগঠিত সরকার কর্তৃক মুজিবনগর নামকরণ করা হয়। ভেন্যু নির্বাচন খুবই আকর্ষণীয় ছিল, প্রাথমিকভাবে জায়গাটি দখলদার পাকিস্তানি সেনাবাহিনী থেকে মুক্ত ছিল, বাংলাদেশের দিক থেকে আসা রাস্তাগুলি কঠিন ছিল, তিনটি দিক ভারত দ্বারা আচ্ছাদিত ছিল। কিন্তু পিএএফের বিমান হামলা ছিল বড় হুমকি। তাই বৈদ্যনাথতলার আমের বাগানটি প্রাকৃতিকভাবে একটি নিরাপত্তা আবরণ প্রদান করেছিল ।

মুজিবনগর সরকারের মূল লক্ষ্য ছিল বেসামরিক প্রশাসন ও মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠিত করা, অস্ত্র সরবরাহ করা এবং প্রশিক্ষণ দেওয়া, কূটনৈতিক পদক্ষেপের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের জন্য আন্তর্জাতিক সমর্থন জোগাড় করা, বিভিন্ন স্তরে দ্রুত এবং নিশ্চিত যোগাযোগ করা, সর্বোপরি বিভিন্ন কার্যক্রমের কার্যকর সমন্বয় নিশ্চিত করা। যুদ্ধের কঠিন দিনগুলোতে মুক্তিযোদ্ধাদের মনোবল অটুট রাখা।

নতুন সরকারের দুটি প্রধান কাজ ছিল,
১। সদ্য ঘোষিত স্বাধীন দেশের জন্য আন্তর্জাতিক সমর্থন অর্জন করা।
২। আমাদের মুক্তিযুদ্ধকে সমন্বয় করা।

নির্বাসিত সরকারের কার্যকারিতা প্রাথমিকভাবে নির্ভর করে বিদেশী সরকার বা তার নিজের দেশের জনসংখ্যার কাছ থেকে যে পরিমাণ সমর্থন পায় তার উপর। মুজিবনগর সরকার উভয়ই অর্জনে সফল হয়েছিল।

সাংবিধানিক বৈধতা এবং মুক্তিযুদ্ধ উভয় ক্ষেত্রেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন দেশের শ্রেষ্ঠ নেতা। বঙ্গবন্ধুর চেতনায় মুজিবনগর সরকারের সফল নেতৃত্বে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর মুক্তিযুদ্ধকে বিজয়ের দিকে নিয়ে যায়।

মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ আত্মত্যাগের সাথে কোন কিছুর মিল থাকতে পারে না, যারা জাতির আহ্বানে জীবন দিয়েছিলেন, জাতির স্বাধীনতাকে সমুন্নত রাখতে সবকিছু উজার করে দিয়েছিলেন।

এটা আমাদের গর্বের বিষয় যে, আমাদের জাতি জন্ম দিয়েছে সেইসব সাহসী নেতা, দলীয় কর্মী, সৈনিক, ছাত্র, কৃষক, পেশাজীবী, কূটনীতিক ও বীর ব্যক্তিদের যারা মাতৃভূমির স্বাধীনতার জন্য আত্মত্যাগ করেছেন। কষ্টার্জিত স্বাধীনতার মর্মবাণীকে রক্ষা করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় পরিণত করতেতবে বর্তমানেও আমাদের প্রয়োজন দৃঢ় সংকল্প, নিঃস্বার্থ ত্যাগ, আর দেশপ্রেমের গভীর চেতনা ।

লেখকঃ সদস্য, অর্থ ও পরিকল্পনাবিষয়ক উপকমিটি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

 

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত