বঙ্গবন্ধু ও বাঙালির আত্মপরিচয়

মোহাম্মদ বেলাল হোসেন: স্বাধীনতা। চার অক্ষরের শব্দ। পরিধি তার ব্যাপক। নির্দিষ্ট ভূখণ্ডে বসবাসরত ব্যাপক জনগোষ্ঠীর ভাষা, সংস্কৃতি, কৃষ্টি, ঐতিহ্য, অর্থনীতি, রাজনীতিসহ জীবনের সামগ্রিক ক্ষেত্রে নিজস্ব রীতিনীতি, স্বকীয়তা অটুট রেখে স্বজাতির ম্যান্ডেট নিয়ে জনপ্রতিনিধির শাসনে পরিচালিত হতে পারার গ্যারান্টিই হচ্ছে স্বাধীনতা। যে কোনো দেশের স্বাধীনতা এমন একটি অমূল্য সম্পদ, যা কুড়িয়ে পাও...

বঙ্গবন্ধুর দূরদর্শী নেতৃত্ব ও আমাদের স্বাধীনতা

হীরেন পণ্ডিতঃ প্রত্যেক দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে একজন বড়মাপের নেতা থাকেন। যেমন আমেরিকার জর্জ ওয়াশিংটন, রাশিয়ার লেনিন, চীনের মাও সেতুং, ভারতের মহাত্মা গান্ধী, ইন্দোনেশিয়ার সুকর্ণ, ভিয়েতনামের হো চি মিন এবং বাংলাদেশের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। জাতির পিতা, রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা বা স্বাধীনতা সংগ্রামের নেতা হিসেবে তারা নিজ নিজ দেশে মর্যাদার আসনে চিরকাল অধিষ্ঠিত আছেন। ...

দক্ষিণ এশিয়ার রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক বিস্ময়

ড. জামালউদ্দিন আহমেদ এফসিএঃ ঐতিহাসিকেরা এ ব্যাপারে একমত যে ১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধে বাংলার শেষ নবাব সিরাজ-উদ-দৌলাকে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে পরাস্ত করে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি বাংলার শাসনভার কব্জা করার মাধ্যমে পর্যায়ক্রমে সমগ্র ভারতবর্ষে তাদের থাবা বিস্তার করতে সক্ষম হয়। তারও আগে সমৃদ্ধ এই বাংলা জনপদে বাণিজ্য সম্প্রসারণ নিয়ে দ্বন্দ্ব-সংঘাতে ইউরোপীয় অন্য বণিকদের হারিয়ে ব্রি...

স্বাধীনতার পর আওয়ামী লীগের সরকার পরিচালনা

বঙ্গবন্ধু ও আওয়ামী লীগের হাত ধরেই হাজার বছরের শোষণ ও দাসত্ব থেকে মুক্তির পায় বাঙালি জাতি, স্বাধীন হয় বাংলাদেশ। দেশ স্বাধীনের পর মাত্র সাড়ে তিন বছর দেশ শাসনের সময় পান বঙ্গবন্ধু। আওয়ামী লীগের এই সাগে তিন বছরের স্বল্প সময়েই শত বছর সামনে পথ চলার ভিত্তি স্থাপন করেন তিনি। এমনকি এখনো বাংলাদেশ যেসব নীতির ওপর পরিচালিত হচ্ছে সেগুলোর অধিকাংশ বঙ্গবন্ধুর ঠিক করে দিয়ে যাওয়া।...

বঙ্গবন্ধুর ও আওয়ামী লীগের গণমুখী নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতি

১৯২০ সাল, খুব মজার একটা হিসেব আছে এখানে। এই বছরই কিন্তু ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে অসহযোগ আন্দোলন শুরু করেন মহাত্মা গান্ধী। খেয়াল করে দেখবেন, আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানও কিন্তু জন্মগ্রহণ করেছেন এই বছরেই। পরবর্তীতে বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য পাকিস্তানের সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে আওয়ামী রীগের অসহযোগ কর্মসূচির সফল প্রয়োগ করেছিলেন তিনি ১৯৭১ সালে। কাকতালীয় হল...

বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের যুগলযাত্রা

যার জন্ম না হলে বাংলাদেশের জন্ম হতো না, সেই কালপুরুষের নাম শেখ মুজিবুর রহমান। যার বেড়ে ওঠার প্রতিটি দিনলিপির সঙ্গে লেখা আছে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার ইতিহাস। বাংলাদেশের ইতিহাস মানেই শেখ মুজিবের জীবনের ধারাপাত। তাই বাংলাদেশের পথচলা জানতে হলে, শেখ মুজিবের জীবনকথা জানা জরুরি। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের বৃহত্তর ...

স্বাধীনতার পরেই নারীদের উন্নয়নে পদক্ষেপ নেয় আওয়ামী লীগ

বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে ’৭১-এর স্বাধীনতা যুদ্ধে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে অংশগ্রহণ করেছিল। নারী অস্ত্র হাতে যুদ্ধ করেছে, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের সেবা-শুশ্রুষা করেছে, মুক্তিযোদ্ধাদের তথ্য সরবরাহ করে সহযোগিতা করেছে, স্বামী-সন্তানকে যুদ্ধে পাঠিয়েছে এবং লাখ লাখ মা-বোন নির্যাতনের শিকার হয়ে বিজয়ে অবদান রেখেছেন। এমনকি বঙ্গবন্ধুর শৈশব থেকেই স্বপ্নের সাথী হয়েছেন বেগম ফজিলাতুননেছা ...

বঙ্গবন্ধু ও আওয়ামীলীগ: বাংলা ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতির মিলিত স্রোতধারা

বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি, জাতির পিতা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিশ্বব্যাপী একজন মুক্তিসংগ্রামী এবং মহান রাজনীতিবিদ হিসেবে পরিচিত। তিনি রাজনীতির মানুষ, রাজনীতিই তার জীবনের ধ্যান-জ্ঞান। তিনিই বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদী নেতা। রাজনৈতিক সত্তাই বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে বড় পরিচয়। তবে শুধু রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তিই নয়; বাংলাদেশের ভাষা, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির মুক্...

বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও স্বাধীনতার মূলমন্ত্রঃ ঐতিহাসিক ছয় দফা

মোঃ হাফিজুর রহমানঃ "আমাদের দেশে হবে ছেলে সেই কবে কথায় না বড় হয়ে কাজে বড় হবে।" কবি কুসুম কুমারী দাসের সেই আদর্শবান ছেলে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। যিনি তার কথা অপেক্ষা বেশি অর্থাৎ অসংখ্য কাজের মাধ্যমে জন্ম দিয়েছেন একটি সোনার বাংলা, বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের। বাংলাদেশ নামক একটা স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বপ্ন যিনি প্রথম দেখেছ...

শত্রুর দুর্গেই স্বাধীনতার দাবি তোলেন বঙ্গবন্ধু

অজয় দাশগুপ্তঃবঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসনের জন্য ছয় দফা কর্মসুচি আনুষ্ঠানিকভাবে উপস্থাপন করেছিলেন ৫৫ বছর আগে, ১৯৬৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে। কয়েকদিন আগে স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর পূর্তির এক আলোচনায় একাধিক বিশেষজ্ঞ বলছিলেন- ছয় দফা প্রদানের মাত্র পাঁচ বছরের মধ্যেই স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশের অভ্যুদয়। এ কর্মসূচির কারণেই শেখ মুজিবু...

মে দিবসে বঙ্গবন্ধু

অজয় দাশগুপ্তঃ বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে শ্রমিকদের ভূমিকা ছিল অনন্য। বিপুলসংখ্যক শ্রমিক মুক্তিযুদ্ধে সরাসরি অংশগ্রহণ করে। স্বাধীন দেশে শ্রমিকরা বাঁচার মতো মজুরি ও অন্যান্য সুবিধা পাবে, এটা বঙ্গবন্ধু চেয়েছেন। তবে তার মূল লক্ষ্য ছিল শোষণ-বঞ্চনার অবসান। তিনি সমাজতন্ত্রকে রাষ্ট্রীয় চার মূলনীতির অন্যতম হিসেবে ঘোষণা করেন।মে দিবস, ১৯৫৪। মার্চ মাসের প্রথমদিকে পূর্ব পাকিস্ত...

মুজিবনগরঃ বাংলাদেশের প্রথম সরকার

১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস। এই দিনটি বাঙালি জাতির জীবনে এক অবিস্মরণীয় দিন। আমাদের স্বপ্নের স্বাধীন বাংলাদেশ বিনির্মানে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে দেশের আগামীদিনের প্রত্যাশিত দিক-নির্দেশনা, সাংবিধানিক এবং যৌক্তিক অধিকার রক্ষার জন্য মুজিবনগর সরকার গঠন করা তৎকালীন সময়ে অপরিহার্য ছিল। ১৯৭০ সালের নির্বাচনের পর তৎকালীন পাকিস্তানি শাসকচক্র নির্বাচিত জনপ্রতিনিধ...

১৭ই এপ্রিল, ১৯৭১ ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস

১৭ই এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের সুদীর্ঘ ইতিহাসের এক চির ভাস্বর অবিস্মরণীয় দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে কুষ্টিয়া জেলার তদানীন্তন মেহেরপুর মহকুমার বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে স্বাধীন-সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের প্রথম সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে শপথ গ্রহণ করে। এ অনুষ্ঠানে ষোষিত হয় ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিলে গঠিত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বাধীন...

পূর্ণ প্রস্তুত হয়েই বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধে

অজয় দাশগুপ্তঃ স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ২৬ মার্চ, ২০২১। উন্নত বিশ্বের সারিতে স্থান করে নেওয়ার দৃঢ়সংকল্প নিয়ে এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ। ১৯৭১ সালে, এই মার্চ মাসে স্বাধীনতার জন্য সশস্ত্র যোদ্ধা হয়েছি। ১ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ থেকে বের হয়ে রাজপথে স্বাধীনতার স্লোগান দিই। ২৫ মার্চ মধ্যরাতে ‘অস্ত্র হিসেবে একটি গাছের ডাল নিয়ে’ বর্তমান সোনারগাঁও হোটেলের কাছে...

উন্নয়ন ও সামগ্রিকতায় বঙ্গবন্ধু’ই বাংলাদেশ

সজল চৌধুরীঃ সম্প্রতি একটি খবর দেখে অনুপ্রাণিত হলাম। সুখী দেশের তালিকায় নয় ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। ২০১৮-২০২০ সাল পর্যন্ত বিশ্বের প্রায় ১৪৯টি দেশের মধ্যে জরিপ চালিয়ে প্রতিবেদনটি তৈরি হয়েছে। যেখানে মানুষ তার ব্যক্তিগত জীবনে কতটা সুখী তার নম্বর ভিত্তিক মূল্যায়ন থেকে এই তালিকাটি তৈরি করা হয়। যেখানে বাংলাদেশ তার তার প্রাপ্ত নম্বর অনুযায়ী তালিকার ৬৮ নম্বরে স্থান পেয়েছে। আ...

৭ মার্চের ভাষণ ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিব

মো. আবুসালেহ সেকেন্দার: জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ভাষায়– ‘কোনো কালে একা হয়নি ক’জয়ী পুরুষের তরবারী, প্রেরণা দিয়াছে, শক্তি দিয়াছে বিজয় লক্ষ্মী নারী।’ বাংলাদেশের ইতিহাসে কবির ভাষার ‘বিজয় লক্ষ্মী নারী’ ছিলেন বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিব। তিনি বর্তমান গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে ১৯৩০ সালের ৮ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন। শেখ...

জাতির পিতা যেদিন দিলেন স্বাধীনতার পথ-নকশা

শোষণমুক্তির মন্ত্রে উজ্জীবিত বাঙালির স্বাধীনতার ডাক এসেছিল যেদিন, সেই সাতই মার্চ এল পঞ্জিকার পাতা ঘুরে। বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণের সেই দিনটি এবার এসেছে ভিন্ন মহিমায়; এ মাসেই বাংলাদেশ উদযাপন করছে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী; সেই সঙ্গে চলছে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর উদযাপন।   জাতির মুক্তি সংগ্রামের স্বপ্নে ধারাবাহিক আন্দোলনের এক পর্যায়ে ১৯৭১ সালের এই দি...

৭ মার্চের ভাষণ ভাষার জাদু

সৈয়দ মনজুরুল ইসলামঃ এক বিদেশি সাংবাদিক ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ সকাল থেকেই একজন দোভাষী খুঁজছিলেন, সেদিন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে ভাষণ দেবেন তা তাৎক্ষণিক ইংরেজি করে তাকে শোনাবে, সেজন্য। দুপুরের আগে আমার সঙ্গে তার যোগাযোগ হলো, বললাম ভাষণ শুরুর আগে টিএসসিতে এসে তার সঙ্গে রেসকোর্স মাঠে যাব। মাঠে সেদিন কত মানুষ ছিল, কেউ বলতে পারবে না। হয়তো ১০ লাখ। হয়তো আট ...

৭ মার্চ- ছিয়াত্তর আর একুশে

অধ্যাপক ডাঃ মামুন আল মাহতাবঃ বঙ্গবন্ধু তাঁর ৭ মার্চের অমর ভাষণটি দিয়েছিলেন একাত্তরে। সেই ভাষণের পথ বেয়ে আমাদের চূড়ান্ত মুক্তি সংগ্রাম আর স্বাধীনতা। এই ইতিহাস সবার জানা। কাজেই নতুন করে বলার প্রয়োজন সামান্যই। ২০২১-এ ৭ মার্চটা অনেক স্বস্তির। আজ বাংলাদেশে যখন তার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের দারপ্রান্তে এদেশের ক্ষমতায় তখন স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তির নিরবচ্ছিন্ন একটি যুগ অতিবাহিত...

জনসমুদ্রে গণজোয়ার তোলা সেই দিন

এম. নজরুল ইসলামঃ  সে এক দিন এসেছিল বটে বাঙালি জাতির জীবনে। ৭ মার্চ ১৯৭১। জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা ভাষণ দেবেন। সকাল থেকেই প্রতীক্ষার প্রহর গুণেছে মানুষ। সব শ্রেণি-পেশার মানুষ ভীড় জমিয়েছিলে রমনার রেসকোর্স ময়দান, আজকের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। জনসমুদ্রে গণজোয়ার তোলা, ইতিহাস গড়া এক অপরাহ্নে তিনি এলেন। মানুষের সামনে দাঁড়িয়ে উচ্চারণ করলেন মানুষেরই মনের কথা। ‘ঘরে...