মহামানবের প্রত্যাবর্তন এবং স্বাধীনতার পরিপূর্ণতা

ড. প্রণব কুমার পাণ্ডেঃ ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি স্মরণীয় দিন। কারণ বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা এবং মুক্তিযুদ্ধের সর্বোচ্চ নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি থাকার পর লন্ডন ও নয়াদিল্লি হয়ে দেশের পবিত্র মাটিতে ফিরে আসেন এই দিনে। বাংলাদেশে ফিরে আসার আগে, তিনি পাকিস্তানের কারাগারে ভয়ঙ্কর নিষ্ঠুরতার মুখোমুখি হয়েছিলেন, য...

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের ভাষণ নির্দেশিত আদর্শে দেশ চলবে : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জাতির পিতা ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে যে দিকনির্দেশনামূলক ভাষণ দিয়েছিলেন সেমতেই বাংলাদেশ চলবে। আর দেশের এই অগ্রযাত্রা যাতে কোনভাবে ব্যাহত না হয় সে বিষয়েও সকলকে সতর্ক করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা ১০ জানুয়ারি দেশে ফিরে (পাকিস্তানের কারাগার থেকে) এসে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র কিভাবে চলবে সেই নীতিনির্ধারণী বক্তৃতা ...

বঙ্গবন্ধুর প্রত্যাবর্তন ও নতুন দিনের অঙ্গীকার

ড. আতিউর রহমানঃ  এবারের দশই জানুয়ারি এক ভিন্ন মেজাজে পালিত হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের এই দিবসে আমরা প্রবল উৎসাহে তার জন্মশতবার্ষিকী এবং বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তীর আনন্দ দেশবাসীর সঙ্গে ভাগ করে নিচ্ছি। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ হানাদার পাকিস্তানি সেনা ও তাদের দোসরমুক্ত হলেও আমাদের বিজয় সেদিন পূর্ণ হয়নি। যিনি বাংলাদেশের আরেক নাম সেই তিনি তখনো পা...

নতুন প্রজন্মের চোখে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন

তন্ময় আহমেদঃ  সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাত ধরে স্বাধীনতা লাভ করে বাংলাদেশ। ত্রিশ লাখ শহীদ ও চার লাখ নারীর ত্যাগের বিনিময়ে বিশ্বের মানচিত্রে নতুন রাষ্ট্র হিসেবে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর আত্মপ্রকাশ করে আমাদের জন্মভূমি। সেই পৌষের পড়ন্ত বিকেলে বিজয়ের উত্তাপে শীতের অনুভূতি হারিয়ে ফেলে মানুষ। উল্লাসে ফেটে পড়ে জনগণ। তবে রাত পেরোনোর আগে...

আসলেন ফিরে ওই জনগণের ‘রাজা’

হায়দার মোহাম্মদ জিতু: কালের ইতিহাসে কোন কোন শাসকও যে জনগণের জন্যে কাতর-উদ্বিগ্ন ছিলেন এবং তাদের দুর্দশা লাঘবের জন্য সব ছেড়ে-ছুঁড়ে সংগ্রাম করেছেন তারই একখণ্ড উদাহরণ সফোক্লিসের ‘ঈদিপাস’ নাটক। যেখানে গ্রিক রাজা ঈদিপাস তার প্রাসাদ মুখে দাঁড়িয়ে দু’হাত প্রসারিত করে জনগণের দুর্দশাকে আলিঙ্গন করেছেন এবং তার থেকে উদ্ধারের পথ নির্মাণে নিজেকে উৎসর্গ করেছে...

জাতির পিতা- বাংলাদেশ

এম নজরুল ইসলামঃ পূর্ণ স্বাধীনতা লাভের পরও একাত্তরের বিজয় দিবসে বাঙালীর একটি শূন্যতা ছিল। স্বজন হারানো মানুষের প্রিয় নেতা, যিনি গোটা স্বাধীনতা আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছেন, যাঁর নির্দেশিত পথে গোটা জাতি যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছে, তিনি পাকিস্তানের কারাগারে। দেশজুড়ে মানুষের প্রতীক্ষা, নেতা কখন ফিরবেন। ১০ জানুয়ারি ১৯৭২ সালে সেই আকাক্সক্ষা পূরণ হলো আমাদের। নেতা ফিরে এলেন বাং...

মহানায়কের ঐতিহাসিক প্রত্যাবর্তন

আবদুর রহমানঃ আজ ঐতিহাসিক ১০ জানুয়ারি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে লন্ডন ও দিল্লী হয়ে আজকের এই দিনে তিনি তাঁর স্বপ্নের স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে পা রাখেন। বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় পরিপূর্ণতা লাভ করে। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে পাকিস্...

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: স্বাধীনতার পূর্নতা

ইয়াসির আরাফাত-তূর্য: ‘‘চতুর্দিকে শোক, আহাজারি, ধ্বংসচিহ্ন, পোড়াগ্রাম, বিধ্বস্ত জনপদতিনি ফিরে আসলেন, ধ্বংসস্তূপের ভেতর ফুটে উঠল কৃষ্ণচূড়ামুকুলিত হ’ল অপেক্ষার শিমুলশোক থেকে জেগে উঠল স্বপ্ন, রক্তে বাজল দারুণ দামামাবেদনার অশ্রুরেখা মুছে ফেলে‘জয় বাংলা, জয় বাংলা’ ব’লে হেসে উঠললতাগুল্ম, ধূলিকণা, পরিপূর্ণ দীপ্ত পতাকা।’’(কব...

স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সম্পূর্ণ ভাষণ

স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সম্পূর্ণ ভাষণ

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধাঞ্জলি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধাঞ্জলি

বঙ্গবন্ধুর দেশে ফেরাঃ সময়ক্রম ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ থেকে ১০ জানুয়ারী ১৯৭২

স্কোয়াড্রন লিডার সাদরুল আহমেদ খান (অব): ২৫ মার্চ ১৯৭১ সালে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর কুখ্যাত অপারেশন সার্চ লাইট শুরু হলে ২৬ শে মার্চ প্রথম প্রহরে ১২.২০ মিনিটে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণার পর রাত ০১.৩০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কে গ্রেফতার করে পাকিস্তান সামরিক বাহিনী। ঢাকা সেনা নিবাসের বিভিন্ন সেলে রাখার পর ১ এপ্রিল ১৯৭১ তাঁকে বিমানে করে নিয়ে যাওয়া হয় রাওয়া...

আলোর পথের যাত্রা

জাহাঙ্গীর আলম সরকারঃ আজ ১০ জানুয়ারি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৫০তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের পথিকৃৎ এবং বাঙালি জাতির অবিসংবাদী নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালের এই দিনে দেশে প্রত্যাবর্তন করেন। দীর্ঘ নয় মাস পাকিস্তান কারাগারে বন্দিদশা থেকে মুক্ত হয়ে স্বদেশের মাটিতে এসে তিনি আবেগ বিহ্বল হয়ে পড়েন। সশস্ত্র সংগ্রাম ও ...

ভুট্টোর শেষ অনুরোধ

জাহাঙ্গীর আলম সরকারঃ ১৯৭১ সালে বিজয় দিবসের ৪ দিন পরে ২০ ডিসেম্বর তারিখে পাকিস্তানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী নুরুল আমিনের কাছে প্রেরিত এক বার্তায় জেনারেল ইয়াহিয়া খান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তিদানের আভাস দেন। সেদিন জেনারেল ইয়াহিয়ার পদত্যাগ সংবাদ ঘোষিত হওয়া পর্যন্ত পাকিস্তান সরকার বঙ্গবন্ধুর মুক্তি না দেওয়ার সিদ্ধান্তে অটল ছিল। (দি ফাই...

দূরে থেকেও ছিলেন কত কাছে

অজয় দাশগুপ্ত: বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম চলাকালে পাকিস্তানের কারাগারে বঙ্গবন্ধুর জীবনে কী ঘটেছিল সেটা নিয়ে লিখেছেন পাকিস্তানের সংস্কৃতি আন্দোলনের সংগঠক ও কবি আহমাদ সালিম। ‘ব্লাড বিটেন ট্রাক’ শিরোনামে লেখা গ্রন্থটি ঢাকাতেও প্রকাশ হয়েছিল, ২০ বছর আগে। সালিম সামাদ ২০১৭ সালের জুলাই মাসে ঢাকায় এসে একাধিক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন এবং ১৯৭১ সালের জোনোসাইডের ...

বঙ্গবন্ধুর মুক্তিই বাংলাদেশের মুক্তি

ইয়াসির আরাফাত-তূর্য: ৮ জানুয়ারি ১৯৭২ আজকের এইদিনে পাকিস্তানের নারকীয় মৃত্যুকুপ থেকে  মুক্তিলাভ করেন বাঙালির মুক্তিদাতা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। প্রকারান্তরে সেদিন বাংলাদেশ-ই মুক্তিলাভ করেছিলো । কেননা বঙ্গবন্ধুই মানেই তো বাংলাদেশ। তিনি পরাধীনতার ইতিহাস থেকে বাঙালির পরিত্রাতা হিসেবে সৃষ্টিকর্তার ...

অন্ধকার হতে আলোর পথে প্রত্যাবর্তন

ড. আনোয়ার খসরু পারভেজঃ ১০ জানুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। বাঙালি জাতির ইতিহাসে এদিনটি বিশেষ মর্যাদা লাভ করেছে। বঙ্গবন্ধু নিজে তাঁর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনকে ‘অন্ধকার হতে আলোর পথে যাত্রা’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলেন। এ আলোর পথের দিশারী ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি দেশে ফেরেন। এদিন বাঙালি তাঁদের ইতিহাসের বরপুত্র...

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর পাকিস্তানের জেলে বঙ্গবন্ধুকে হত্যাচেষ্টা

পাকিস্তানি বর্বর জান্তাদের বিরুদ্ধে দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তাক্ষয়ী যুদ্ধ শেষে, ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় অর্জন করে বাঙালি জাতি। লাল-সবুজের কেতন ওড়ে বাংলার মাটিতে। একদিকে ত্রিশলক্ষ শহীদের লাশের স্তূপ, চার লক্ষাধিক নির্যাতিত মা-বোনের আহাজারি; অন্যদিকে পাকিস্তানি দানবদের হাত থেকে বাংলার মাটি ও সাত কোটি মানুষের চির মুক্তি; হাজার বছরের শৃঙ্খলভাঙার উল্লাসে যখন ঢাকা পড়ে ...

স্বাধীনতার স্বদেশ আগমন

ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনঃ ৪৯ বছর আগের এই শুভদিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতির পিতা হিসেবে বীরের বেশে বহুমূল্যে কেনা স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের মাটিতে পা রাখলেন। অথচ তিনি যে ফিরবেনই তার কোনো নিশ্চয়তা ছিল না। ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১, পরাজিত দখলদার বাহিনীর আত্মসমর্পণের লজ্জা শুরু। কিন্তু বিজয়ী জাতি বাঙালির মনে জন্ম নেয় চরম উৎকণ্ঠা। ন্যায়নীতি, সভ্য আচরণের কোনো মানদণ্ডে...

মহামানবের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন

ড. মুনাজ আহমেদ নূর: বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালী জাতির প্রেরণার উৎস। ১৯৭১ সালে ২৫ মার্চের মধ্যরাতে ঢাকায় পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী নিরস্ত্র বাঙালীর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে যখন হাজার হাজার বাঙালীকে হত্যা করে, ঠিক তখনি বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা বাঙালী জাতিকে দিয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের নির্দেশনা। ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে স্বাধীনতার ঘোষ...

জনকের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন : বিজয়ের পরিপূর্ণতা অর্জন

তোফায়েল আহমেদঃ বাঙালি জাতির জীবনে ১০ জানুয়ারি চিরস্মরণীয় অনন্য ঐতিহাসিক দিন। ১৯৭২-এর এ দিনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে বাংলার মানুষ বিজয়ের পরিপূর্ণতা অর্জন করে। যদিও ১৯৭১-এর ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ হানাদারমুক্ত হয়। কিন্তু বাংলার মানুষ স্বাধীনতার স্বাদ পায়নি। কারণ যাঁর নেতৃত্বে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ তিনি তখনো কারাগারের...