স্বাধীনতা ও মুক্তিকামী মানুষের চিরন্তন অনুপ্রেরণা

876

Published on মার্চ 7, 2022
  • Details Image

মাহবুবউল আলম হানিফ:

বাংলাদেশের স্মরণীয় ও গুরুত্বপূর্ণ একটি দিন ৭ই মার্চ। মূলত ১৯৭১ সালের এই দিনেই স্বাধীন দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে। বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রেসকোর্স ময়দানে ২৩ বছরের বঞ্চিত, অবহেলিত ও শোষিত বাঙালিকে স্বাধীনতার মন্ত্রে উজ্জীবিত করেন। তাঁর অসামান্য এই ভাষণে রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও দূরদৃষ্টির পরিচয় মেলে।

সেই দিন বাংলাদেশের সাড়ে সাত কোটি মানুষ নতুন জীবনের মন্ত্রে দীক্ষিত হয়। মুক্তিকামী বাঙালির স্বাধীনতা আন্দোলনের কর্মপন্থা-কৌশল তুলে ধরেন, দেন সঠিক দিকনির্দেশনা। প্রাণিত করেন লাখো বাঙালিকে। শাণিত করেন বাঙালির সাহস।

বঙ্গবন্ধু ৭ই মার্চেই স্বাধীনতার ঘোষণা দেবেন এটা নিয়ে কারো দ্বিমত ছিল না। তবে বঙ্গবন্ধু এ ক্ষেত্রে কিছুটা কৌশলী ভূমিকা পালন করেন। তিনি স্বাধীনতার ঘোষণা দেবেন, আর ইয়াহিয়া মুক্তিকামী জনতাকে নির্বিচারে হত্যা করবে—তা তিনি চাননি। ৬ মার্চ রাতে ইয়াহিয়া দীর্ঘ ফোনালাপে বঙ্গবন্ধুকে সতর্ক করেন, তিনি যেন এমন কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ না করেন, যেখান থেকে ফেরার আর উপায় না থাকে। বঙ্গবন্ধু একবারও উচ্চারণ করলেন না যে এটাই স্বাধীনতার ঘোষণা। অথচ কৌশলে স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে দিলেন। বজ্র কণ্ঠে তিনি ঘোষণা করেন, ‘প্রত্যেক গ্রামে, প্রত্যেক মহল্লায়, প্রত্যেক ইউনিয়নে, প্রত্যেক সাবডিভিশনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সংগ্রাম পরিষদ গড়ে তোল। এবং তোমাদের যা কিছু আছে, তাই নিয়ে প্রস্তুত থাক। মনে রাখবা—রক্ত যখন দিয়েছি, রক্ত আরো দেব; এ দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাল্লা। ’ পাকিস্তানি শাসকের কাছে স্পষ্ট হয়ে যায়, নিরস্ত্র বাঙালি স্বাধীনতার জন্য কেবল গুলি খেতে বুক পেতে দেবে না, তারা পাল্টা আঘাতের জন্য প্রস্তুত।

৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের অন্যতম দিক হচ্ছে, তাত্ক্ষণিকভাবে এত চমৎকার একটি ভাষণ তিনি উপস্থাপন করেন। ভাষণটি খুব পরিমিত ছিল। শুনে মনে হয় তিনি জনসমুদ্রের মানুষের সঙ্গে সংলাপ করছেন। দেশবাসীর বোধগম্য ভাষাতেই কথা বলেছেন। ঘোরতর প্রতিপক্ষ ও শত্রুকেও সৌজন্যমূলক সম্বোধন করেছেন।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর ‘কিছু স্মৃতি কিছু কথা’ বইয়ে লিখেছেন, ‘বাসায় গিজগিজ করছে মানুষ। বেগম মুজিব সবাইকে তাঁদের ঘর থেকে বাইরে যেতে বললেন। ঘরে তখন বঙ্গবন্ধু, বেগম মুজিব আর শেখ হাসিনা। তিনি বললেন, তুমি দশটা মিনিট শুয়ে রেস্ট নাও। ’ শেখ হাসিনার ভাষায়, ‘আমি মাথার কাছে, মা মোড়াটা টেনে নিয়ে আব্বার পায়ের কাছে বসলেন। মা বললেন, মনে রেখ তোমার সামনে লক্ষ মানুষ। এই মানুষগুলোর নিরাপত্তা এবং তারা যেন হতাশ হয়ে ফিরে না যায় সেটা দেখা তোমার কাজ। কাজেই তোমার মনে যা আসবে তাই তুমি বলবা। কারও কোনো পরামর্শ দরকার নেই। তুমি মানুষের জন্য সারা জীবন কাজ করো, কাজেই কী বলতে হবে তুমি জানো। এত কথা, এত পরামর্শ কারও কথা শুনবার তোমার দরকার নেই। এই মানুষগুলোর জন্য তোমার মনে যেটা আসবে সেটা তুমি বলবা। ’

বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের একটি বড় বৈশিষ্ট্য হলো এর সর্বজনীনতা। এই ভাষণ দেশ-কালের গণ্ডি ছাড়িয়ে সর্বজনীন হয়েছে। অলিখিত বক্তৃতাটিতে কোনো পুনরুক্তি ছাড়াই একটি জাতির স্বপ্ন, সংগ্রাম আর ভবিষ্যতের দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। এই ভাষণটি একটি জাতির প্রত্যাশার আয়নায় পরিণত হয়েছে। দীর্ঘ ৯ মাসের মুক্তিযুদ্ধেও এই ভাষণই বাঙালিকে প্রেরণা জুগিয়েছে।

২০১৭ সালের ৩০ অক্টোবর ইউনেসকো জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের অমর এই ভাষণকে ডকুমেন্টারি হেরিটেজ অর্থাৎ বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। ভাষণটি মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টারে সংগৃহীত হয়। বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় স্থান করে নেওয়া এই ভাষণ ২৩টি ভাষায় অনূদিত হয়েছে।

এই পৃথিবীর অনেক গুরুত্বপূর্ণ মানুষ ইতিহাসখ্যাত ভাষণ দিয়ে অমর হয়ে আছেন। আমেরিকার নাগরিক অধিকার নেতা মার্টিন লুথার কিং ১৯৬৩ সালে কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি অত্যাচার-বৈষম্যের অবসান ঘটাতে দাস প্রথার বিরুদ্ধে ভাষণ দেন। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে ফ্রাংকলিন ডি. রুজভেল্ট ১৯৩৩ সালে অভিষেক অনুষ্ঠানে দেশবাসীর প্রতি বক্তৃতা দেন। ১৮৬৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়ার গেটিসবার্গে রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধে মৃতদের স্মরণসভায় আব্রাহাম লিংকনের দেওয়া ভাষণটি ইতিহাসে অমর হয়ে আছে। দ্বিতীয় ভার্জিনিয়া কনভেনশনে প্যাট্রিক হেনরির ভাষণ, রিভোনিয়া ট্রায়ালে বর্ণবাদী সরকারের প্রতি নেলসন ম্যান্ডেলার ভাষণ। এর মধ্যে আব্রাহাম লিংকন ও মার্টিন লুথার কিংয়ের ভাষণ ছিল লিখিত। ভাষণের আগে পূর্বপ্রস্তুতিও ছিল।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ভাষণটি ছিল তাত্ক্ষণিক, উপস্থিত ও অলিখিত। ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণটি একটি জাতির উত্থানের পথ খুলে দিয়েছিল, কোটি কোটি মানুষের বাঁচার দাবি নিয়ে এত অসাধারণ ভাষণ পৃথিবীতে আর ধ্বনিত হয়নি। এই ঐতিহাসিক ভাষণকে উপজীব্য করেই জন্ম নেয় ‘বাংলাদেশ’ নামের এক জাতিরাষ্ট্র। তাই পৃথিবীর যেকোনো জাতির সংগ্রামের জন্য, মুক্তির জন্য এবং স্বাধীন-সার্বভৌম ভূখণ্ডের জন্য জাতির পিতার ৭ই মার্চের ভাষণই শ্রেষ্ঠ।

নিপীড়ন-আন্দোলন-সংগ্রাম। একটি ভাষণ। তারপর বাঁচা-মরার লড়াই। ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদ আর দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের জন্ম। ১৯৭১ সালে বাঙালি জাতির ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মূল অনুপ্রেরণা দেশের বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ভাষণ।

জয় বাংলা।

লেখক : যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

সৌজন্যেঃ কালের কণ্ঠ

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত