বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ ও কিছু আত্মজিজ্ঞাসা!

660

Published on সেপ্টেম্বর 1, 2021
  • Details Image

সজল চৌধুরী:

১০ই জানুয়ারি ১৯৭২। বেলা আড়াইটা। আকাশে ঝকঝকে রোদ। কমেট বিমানের চাকা স্পর্শ করল তেজগাঁও বিমানবন্দরের রানওয়ে। উপচে পড়া ভিড় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে একনজর দেখার জন্য। তারপর সেখান থেকে সরাসরি সোহরাওয়ার্দী উদ্যান। মঞ্চহীন ট্রাকের ওপর দাঁড়িয়ে সেদিন স্বাধীন দেশের লাখ লাখ মানুষের সামনে উচ্চারণ করলেন দেশ-মানুষের প্রতি তার ভালোবাসার কথা, অঙ্গীকারের কথা। তখনও মাথার উপর ছিল রোদের ঝলকানি। সেদিন তিনি পাকিস্তানের উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়েছিলেন এই বলে - “…তোমরা আমার লাখ লাখ মানুষকে হত্যা করেছে, মা-বোনদের বেইজ্জত করেছ, বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিয়েছ, কোটি লোককে ভিটেছাড়া করে ভারতে যেতে বাধ্য করেছ- তারপরেও মনের মধ্যে তোমাদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ পুষে রাখতে চাই না। তোমরা স্বাধীন থাকো, আমাদের স্বাধীনভাবে থাকতে দাও। তোমাদের সঙ্গে সব চুকে বুকে গেছে।…“

শুধুমাত্র জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর এই উচ্চারণকে যদি বিশ্লেষণ করা যায় যেখানে জড়িয়ে রয়েছে এদেশের প্রতি তার অগাধ প্রেম, ভালোবাসা, আবেগ আর ক্ষমা করে দেবার মত মহান সাহসিকতা ও উদারতার বহিরপ্রকাশ। অথচ এই মহামানব কেই একদিন চলে যেতে হল ঘাতকের নির্মম বুলেটের আঘাতে সিঁড়ির উপর পড়ে থাকল তার রক্তে ভেজা নিস্তার দেহ। কালো ফ্রেমের চশমার ভেতর দিয়ে একটি লাল সবুজের সোনার বাংলার যে স্বপ্ন বঙ্গবন্ধু দেখেছিল ঘাতকেরা ভেবেছিল তাকে হত্যা করার মধ্যে দিয়ে তার সেই স্বপ্নকে গলা টিপে হত্যা করবে! সেদিন তারা এতোটুকু ভাবেনি হয়তো বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা যায় কিন্তু তার স্বপ্ন কে হত্যা করা যায় না! কখনো সম্ভব নয়!

এই আগস্ট বাঙালিদের কাছে শোকের একটি মাস। আবার অন্যভাবে বলতে গেলে আত্মিক উপলব্ধির একটি মাস। কারণ ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট আমরা হারিয়েছি জাতির পিতাকে। আমরা সেই সাথে হারিয়েছি বঙ্গমাতাকে, ছোট্ট রাসেলকে। হারিয়েছি বঙ্গবন্ধুর পুত্র-পুত্রবধু ও তার নিকট আত্মীয় স্বজনকে। তাই এই মাসটি আমাদের আত্মিক উপলব্ধির একটি মাস। কারণ প্রতি বছর এই মাসটি আসলে আমাদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়। অন্তরাত্মাকে প্রশ্ন করলে সে প্রশ্ন বারেবারে প্রতিধ্বনিত হয়। বাঙালী হিসেবে স্বার্থপরতার কথা, বিশ্বাসঘাতকতার কথা! আমাদের উপলব্ধি করতে শেখায় জাতি হিসেবে আমরা কত অকৃতজ্ঞ! সেদিন জাতির পিতাকে নির্মমভাবে হত্যা করেও ঘাতকদের মধ্যে ন্যূনতম অনুশোচনা হয়নি। তাদের হাত এতোটুকু কাঁপেনি। সেদিন তারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে ভেবেছিল বাংলাদেশকে হত্যা করবে! তবে তারা ভুলে গিয়েছিল একজন বঙ্গবন্ধুকে হয়তো বুলেটের আঘাতে ক্ষতবিক্ষত করা যায়, পৃথিবী থেকে সরানো যায় কিন্তু বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, দেশপ্রেম, চিন্তা-চেতনা বাংলার প্রতিটি ঘরে ঘরে কোটি বঙ্গবন্ধুর জন্ম দেয়। যারা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে তাদের ভালোবাসা, সংকল্প আর আশা দিয়ে পুনরুজ্জীবিত করতে চায়। দেশকে সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তুলতে চায় তার দেখানো মতাদর্শে। তাই বঙ্গবন্ধুর কখনো মৃত্যু হয় না, বেঁচে থাকে জন্ম-জন্মান্তর।

পৃথিবীতে এমন নজির খুব একটা নেই বললেই চলে। স্বাধীনতা-পরবর্তী অত্যন্ত অল্প সময়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু যে দেশপ্রেমের দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গিয়েছিলেন দেশের পুনর্গঠনে, সার্বিক টেকসই উন্নয়নে - আমরা যদি শুধুমাত্র তার সেই সুদূর প্রসারী চিন্তাভাবনাগুলোকে বাস্তবায়ন করতে পারি এখনও আমরা দেশকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে সক্ষম হব। যার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা তার পিতার সোনার বাংলার স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথেই হাঁটছেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন দেখেছিলেন দেশের কোন মানুষ কখনো আশ্রয়হীন থাকবে না। স্বপ্ন দেখেছিলেন এমন একটি বাংলাদেশের যেখানে গ্রামীণ অর্থনীতি হবে সুদৃঢ়। স্বপ্ন দেখেছিলেন প্রত্যেকটি মানুষ হবে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী। তার দৃষ্টিভঙ্গি ছিল প্রখর, স্বতন্ত্র এবং বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত। তিনি অঙ্গীকার করেছিলেন তার দেশের প্রত্যেকটি মানুষ খাবার পাবে, আশ্রয় পাবে, শিক্ষা পাবে, উন্নত জীবনের অধিকারী হবে। তার ভাষায় “এই হচ্ছে আমার স্বপ্ন”। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পিতার সেই স্বপ্নকে বুকে ধারণ করেই পথ চলছেন বাংলার মানুষের জন্য সম্পূর্ণ স্বতন্ত্র এবং বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে। তিনি সেখানে যুক্ত করছেন নতুন মাত্রা।

তবে কথা থেকে যায় আসলে আমরা সবাই কি সত্যিই তার সাফল্যের জয়গান গাইছি সঠিক সুরে? কিংবা সাফল্য গুলোকে ম্রিয়মান করার জন্য অন্য কোনো অশুভ পদক্ষেপ নিচ্ছি কিনা? কারণ এই আগস্ট আমাদের অনেক কিছু শিখিয়েছে। আগেই বলেছি আত্মোপলব্ধি-পরমাত্মার উপলব্ধি এর কথা। বঙ্গবন্ধুকে ঘিরে ষড়যন্ত্রের জাল কিন্তু ঘর থেকেই শুরু হয়েছিল। এ কথা আমাদের মোটেও ভুলে গেলে চলবেনা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে সমূলে ধ্বংস করার পাঁয়তারা কিন্তু তার অতি কাছের মানুষেরাই করেছিল যা ইতিহাসের সাক্ষী। যদি প্রশ্ন করা হয় বঙ্গবন্ধুর প্রধান অর্জন কি? এক কথায় উত্তর মিলবে “স্বাধীন বাংলাদেশ”। যেখানে যুক্ত রয়েছে মানুষের জীবনের গল্প, শহীদের গল্প, ভাষার গল্প, প্রতিটি রক্তকণা গল্প! অথচ আজ স্বাধীনতার এত বছর পরও আমরা খুঁজে পাই বৈপরীত্য! আমরা খুঁজে পাই সেই সকল স্বার্থপরতার আর অকৃতজ্ঞতার হাতছানি। যারা আজও সোনার বাংলা গঠনে জননেত্রী শেখ হাসিনার সাফল্যকে রুখে দিতে চায়!

ইতিমধ্যে আমরা পত্র-পত্রিকায় দেখেছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার ভূমিহীন ও গৃহহীন মানুষদের আশ্রয়ন প্রকল্পের নির্মাণ ত্রুটির কথা, বারে বারে পদ্মা সেতুর একই পিলারে আঘাত আনার কথা, নামে-বেনামে ভুঁইফোড় সংগঠনের জেগে ওঠার কথা, করোনাকালীন সময়ে কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর অসাধু কর্মতৎপরতার কথা সহ অনেক খবর। সত্যিকার অর্থে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ যারা মনেপ্রাণে ধারণ করে তারা কখনোই এ ধরনের সাফল্যকে ম্রিয়মাণ হতে দেবে না। আমরা জানি বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা কোন অন্যায়ের সাথে আপোষ করেন না। দেশকে সোনার বাংলা গঠনকল্পে দেশের সাধারণ মানুষের দুঃখ কষ্ট লাঘব করার উদ্দেশ্যে, দেশকে অর্থনৈতিক দিক থেকে উন্নয়নের লক্ষ্যে তিনি সর্বদা প্রানপন চেষ্টা করে যাচ্ছেন। তাহলে এই দায়টা কার? জাতি হিসেবে এ লজ্জা কি আমাদের নয়? যে চরম অবহেলা জনিত কারণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রাণপণ প্রচেষ্টা এবং স্বপ্নপূরণের পথে বাধার সৃষ্টি হয় সে গুলোকে যদি সঠিক সময়ে সঠিক পন্থায় পর্যবেক্ষণ এবং চিহ্নিত না করা হয় তাহলে সকল প্রাপ্তি ম্রিয়মান হয়ে যাবে দিনশেষে। আর জাতি হিসেবে এটি হবে আমাদের জন্য চরম ব্যর্থতার। যে ব্যর্থতাগুলো হয়তো সামনে চরম বিপদ ডেকে আনবে! যার জন্য এখন থেকেই আমাদের সচেষ্ট এবং সদা জাগ্রত থাকতে হবে।

লেখার শেষাংশে মনে করতে চাই মানুষকে ভালোবেসে বঙ্গবন্ধু একদিন বলেছিলেন “…মানুষকে ভালোবাসলে মানুষও ভালোবাসে। যদি সামান্য ত্যাগ স্বীকার করেন, তবে জনসাধারণ আপনার জন্য জীবন দিতেও পারে।…” তিনি আরও বলেছিলেন “…আমার সবচেয়ে বড় শক্তি আমার দেশের মানুষকে ভালবাসি, সবচেয়ে বড় দূর্বলতা আমি তাদেরকে খুব বেশী ভালবাসি।…” আমরা কি সত্যি তার সেই ভালোবাসার মূল্য দিতে পেরেছি কিংবা এখনো পারছি? প্রশ্ন থেকে যায় মনে! আর এই প্রশ্নটির সামনে হয়তো একদিন আমাদের সবাইকে দাঁড়াতেই হবে!

লেখকঃ শিক্ষক, স্থপতি ও গবেষক

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত