রাজনৈতিক ইতিহাসে মুজিবনগর সরকারের তাৎপর্য

337

Published on এপ্রিল 17, 2024
  • Details Image

মুজিবনগর সরকার বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি উল্লেখযোগ্য অধ্যায়, যা দেশের অটল সংকল্প এবং স্বাধীনতার জন্য অবিরাম লড়াইয়ের প্রতিনিধিত্ব করে চলেছে। বাঙালি জাতীয়তাবাদীদের ওপর পাকিস্তানের সহিংস দমন-পীড়ন থেকে মুক্তির জন্য ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার গঠিত হয়েছিল। এটি পাকিস্তানি শাসনের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকার হিসেবে কাজ করেছিল।

অর্থনৈতিক বৈষম্য, সাংস্কৃতিক কুসংস্কার এবং বাঙালি জনগণের রাজনৈতিক প্রান্তিককরণের কারণে পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের মধ্যে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনা মুজিবনগর সরকার গঠনে প্রভাবক হিসেবে কাজ করেছিল।

পশ্চিম পাকিস্তানের ক্ষমতাসীন শাসকদের দ্বারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের গণতান্ত্রিক ম্যান্ডেটকে স্বীকৃতি দিতে অস্বীকার করা এবং বাঙালি জনগণের অধিকারের পক্ষে তার সমর্থন মুজিবনগর সরকার গঠনের প্রক্রিয়াকে তরান্বিত করেছিল।

ক্রমবর্ধমান অসন্তোষের মুখে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ 'অপারেশন সার্চলাইট'-এর নামে একটি কঠোর অভিযান পরিচালনা করে। এই অভিযানের উদ্দেশ্য ছিল বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলনকে ধ্বংস করা। এরই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন।

পরবর্তীতে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করার পরে স্বাধীনতা আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় মেহেরপুর জেলার বৈদ্যনাথতলায় (পরে নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় মুজিবনগর) আওয়ামী লীগের উচ্চপদস্থ নেত্রীবৃন্দ ও অন্যান্য রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিরা জড়ো হন।

তারা রাষ্ট্রপতি হিসেবে শেখ মুজিবুর রহমান, উপরাষ্ট্রপতি হিসেবে সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তাজউদ্দীন আহমদকে নিয়ে মুজিবনগর সরকার গঠন করেন। পাকিস্তানি বাহিনীর ব্যাপক নৃশংসতা ও চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতির মুখোমুখি হওয়া সত্ত্বেও, মুজিবনগর সরকার আন্তর্জাতিক সমর্থন সংগ্রহ এবং সামরিক প্রতিরোধ সংগঠিত করার মাধ্যমে পাকিস্তানিদের পরাজিত করার যুদ্ধ পরিচালনা করেছিল।

পাকিস্তানের নিপীড়নের বিরুদ্ধে আশা ও লড়াইয়ের প্রতীক হিসেবে প্রতীকী গুরুত্বসহ, মুজিবনগর সরকার কেবল লাখ লাখ মানুষের মুক্তির আকাঙ্ক্ষাই প্রকাশ করেনি, বাঙালি জনগণের স্থায়ী সহনশীলতার প্রতিনিধিত্ব করেছে।

সম্পদের তীব্র ঘাটতি এবং ভঙ্গুর যোগাযোগ ব্যবস্থার মধ্যে লজিস্টিক্যাল বাধার সম্মুখীন হওয়া সত্ত্বেও অনেক দূর থেকে যুদ্ধ পরিচালনা করে মুজিবনগর সরকারের নেতারা ব্যতিক্রমী উদ্ভাবনমূলক পরিকল্পনা এবং অধ্যবসায়ের প্রমাণ দেখিয়েছিলেন।

সরকারি কর্মকর্তা এবং স্বাধীনতাকে সমর্থন করে এমন ব্যক্তিদের সন্দেহভাজন তালিকায় রেখেছিল পাকিস্তানের সামরিক সরকার। তারা সবসময় প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। ফলে, মুজিবনগর সরকারের সদস্যরা গোপনে এবং অত্যন্ত সতর্কতার সাথে কার্যক্রম পরিচালনা করেছিলেন।

মুজিবনগর সরকার কেবল লাখ লাখ মানুষের মুক্তির আকাঙ্ক্ষাই প্রকাশ করেনি, বাঙালি জনগণের স্থায়ী সহনশীলতার প্রতিনিধিত্ব করেছে।

রাজনৈতিক জোটের মধ্যে অভ্যন্তরীণ বিভেদ এবং ভিন্ন মতাদর্শ থাকা সত্ত্বেও, মুজিবনগর সরকার তাদের উদ্দেশ্যে অনড় ছিল বিধায় সরকারের সদস্যরা স্বাধীনতা অর্জনের জন্য সব মতবিরোধ মিটিয়ে এবং সংহতি বজায় রাখার মাধ্যমে কাজ করে গেছে।

অটল নিষ্ঠার মাধ্যমে তারা কেবল সার্বভৌম বাংলাদেশের ভিত্তি স্থাপনই করেননি, কঠিন চ্যালেঞ্জের মধ্যেও সাহসিকতার সাথে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বকে হৃদয়ে ধারণ করে সমগ্র জাতিকে অনুপ্রাণিত করেছে। স্বাধীনতা সংগ্রামে ঐক্য, সাহসিকতা ও সংকল্পের প্রতীক হিসেবে মুজিবনগর সরকার তার অস্থায়ী অবস্থানের বাইরেও বাংলাদেশের ইতিহাসে স্থায়ী প্রভাব বিস্তার করেছে।

মুজিবনগর সরকারের স্থায়ী প্রভাব বাংলাদেশের ইতিহাস জুড়ে প্রতিধ্বনিত হয়, যা দেশের অভিন্ন স্মৃতিকে গড়ে তোলে এবং একটি স্বাধীন জাতি হিসেবে এর আগামীর পথকে প্রভাবিত করে চলেছে।

মুজিবনগর সরকার শুধুমাত্র একটি অস্থায়ী প্রশাসন হিসেবেই কাজ করেনি, বরং স্বাধীনতা ও আত্মসম্মান অর্জনে বাঙালি জনগণের অটল সংকল্প, নিঃস্বার্থতা ও সাহসিকতার প্রতীক হিসেবে কাজ করেছে।

বাংলাদেশে নিপীড়ন ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে স্থায়ী প্রতিরোধ গঠনে গণতন্ত্র, বহুত্ববাদ এবং সামাজিক ন্যায়বিচারের নীতিগুলো রক্ষার জন্য ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য মুজিবনগর সরকার অনুপ্রেরণার উৎস হিসেবে কাজ করে চলেছে যা দেশের প্রতিষ্ঠাতার ইতিহাসের নথিতে গেঁথে আছে।

তাছাড়া, মুজিবনগর সরকার একটি সার্বভৌম বাংলাদেশ গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় ভিত্তি স্থাপন করার মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো এবং রাজনৈতিক বিশ্বাসযোগ্যতা প্রদান করেছিল যার ওপর ভিত্তি করে সদ্য স্বাধীনতা প্রাপ্ত দেশটি তার ভাগ্য নির্ধারণ করতে পেরেছিল।

স্বাধীনতা সংগ্রামে ঐক্য, সাহসিকতা ও সংকল্পের প্রতীক হিসেবে মুজিবনগর সরকার তার অস্থায়ী অবস্থানের বাইরেও বাংলাদেশের ইতিহাসে স্থায়ী প্রভাব বিস্তার করেছে।

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্ব ও ধর্মনিরপেক্ষতার প্রতি বাংলাদেশের অবিচল নিষ্ঠা দেশের জাতীয় পরিচয়ের একটি মৌলিক দিক হয়ে উঠেছিল, যা অন্যান্য ধর্ম পালনের অধিকারের নিশ্চয়তা প্রদান করেছে এবং এমন একটি সমাজ গড়ে তুলেছে যা বিভিন্ন জাতি ও বিশ্বাসকে সম্মান করে।

এছাড়া, মুজিবনগর সরকারের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি বিশ্ব অঙ্গনে বাংলাদেশের কূটনৈতিক অবস্থানকে উল্লেখযোগ্যভাবে শক্তিশালী করেছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য জাতি, সংগঠন ও জনগণের সমর্থন স্ব-শাসন ও স্বাধীনতার লড়াইয়ের ব্যাপক আবেদনকে তুলে ধরেছিল। মুজিবনগর সরকার কর্তৃক প্রাপ্ত কূটনৈতিক সমর্থন যুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীনতা প্রাপ্ত নতুন জাতিকে বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছ থেকে বস্তুগত ও নৈতিক সমর্থন সংগঠিত করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ সহায়তা প্রদান করেছিল।

কূটনৈতিক প্রভাবের পাশাপাশি বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে মুজিবনগর সরকারের উত্তরাধিকারের গভীর অনুরণন রয়েছে। শেখ মুজিবুর রহমানের অনুপস্থিতিতে তাজউদ্দীন আহমদ ও সৈয়দ নজরুল ইসলামসহ আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতারা স্বাধীনতা অর্জনের পর জাতির দিশাকে প্রভাবিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

তাদের বিচক্ষণ নির্দেশনা ও দূরদর্শিতা গণতন্ত্র ও উন্নতির দিকে বাংলাদেশের অগ্রগতির ভিত্তি স্থাপন করেছিল, যা একটি গতিশীল ও সহনশীল গণতন্ত্র হিসেবে জাতির ভবিষ্যতের পথ প্রশস্ত করেছে।

তাছাড়া, গণতন্ত্র, অন্তর্ভুক্তি এবং সামাজিক ন্যায়বিচার সম্পর্কে মুজিবনগর সরকারের ধারণাগুলো এখনো বাংলাদেশের জাতীয় মূল্যবোধ গঠনে সহায়তা করছে এবং এর নীতিগত অবস্থানকে প্রভাবিত করছে। ফলে, বাংলাদেশ আজ সমতা ও ন্যায়বিচারের আদর্শে প্রতিষ্ঠিত একটি সমাজ গঠনে নিবেদিত।

এই প্রতিশ্রুতি দেশের উন্নয়ন অর্জনের মূলে রয়েছে, যার লক্ষ্য প্রান্তিক ও সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর অবস্থার উন্নতি করা এবং প্রত্যেকের জন্য অন্তর্ভুক্তিমূলক অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি নিশ্চিত করা।

পরিশেষে, অস্থায়ী প্রশাসন হিসেবে স্বল্পস্থায়ী অস্তিত্বের বাইরে গিয়েও মুজিবনগর সরকারের তাৎপর্য ব্যাপক। এটি বাঙালি জনগণের সহনশীলতার প্রকৃতি এবং স্বাধীনতা, গণতন্ত্র এবং ব্যক্তিগত মূল্যবোধের প্রতি তাদের অবিচল বিশ্বাসের প্রমাণ হিসেবে কাজ করে চলেছে।

বাংলাদেশ উন্নয়ন ও সাফল্যের দিকে এগিয়ে যাওয়ার সাথে সাথে, মুজিবনগর সরকারের উত্তরাধিকার একটি আলোকবর্তিকা হিসেবে কাজ করে চলেছে, যা ভবিষ্যতের প্রজন্মকে তাদের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের সন্ধানে সংকল্প, নিঃস্বার্থতা এবং সাহসিকতার নীতিগুলি সংরক্ষণ করতে অনুপ্রাণিত করবে।

লেখকঃ ড. প্রণব কুমার পান্ডে; রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের অধ্যাপক

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত