জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

441

Published on আগস্ট 27, 2022
  • Details Image

জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর খুনিদের প্রতিষ্ঠিত করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী এবং কেরানীগঞ্জ-ঢাকা ৩ আসনের সংসদ সদস্য নসরুল হামিদ। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘জিয়াউর রহমান পাকিস্তানের সাথে একযোগ হয়ে খুনিদের বিভিন্ন দূতাবাসে পাঠিয়ে পুরস্কৃত করেন। ১৫ আগস্টের পর হাজার হাজার আওয়ামী লীগ নেতাকে বন্দী করেছিলেন সামরিক শাসক জিয়াউর রহমান। শতশত লোককে বিনা বিচারে ফাঁসির ঝুলিয়েছিলেন।’

আওয়ামী লীগ ও স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তিকে সমূলে বিনাশ করতে সব আয়োজন করেছেন জিয়াউর রহমান বলেও উল্লেখ করেন মন্ত্রী। তিনি তরুণ প্রজন্মকে এসব ইতিহাস চর্চার করার আহ্বান জানান।

দেশের খনিজ সম্পদ নিয়ে আপোস না করায় ২০০১ সালের নির্বাচনে দেশি বিদেশী ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে আড়াই কোটি ভূয়া ভোটারের তৈরি করে শেখ হাসিনাকে পরাজিত করা হয় বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

ষড়যন্ত্রীকারীরা বিভিন্ন সময় জাতির জনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন নসরুল হামিদ। তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসলেই একদল দুর্বৃত্ত দেশ বিদেশে ষড়যন্ত্র শুরু করে।’
বিএনপির মুখে সমালোচনাকে ‘ভূতের মুখে রামনাম’ উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘২০০১ পরবর্তী সময়ে কেরানীগঞ্জকে অপরাধের কেন্দ্রী বানিয়েছে বিএনপি।

একুশ আগস্ট গ্রেনেড হামলার জন্য বিএনপিকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি দেশকে বোমাবাজীর দেশ হিসেবে বিশ্বের কাছে পরিচিত করেছিলো। এখন বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়াচ্ছে। বিশ্ববাসী বাংলাদেশকে এখন উপমা হিসেবে নিচ্ছে।’

মাথায় বুদ্ধি না থাকলেই বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কা হয়ে যাচ্ছে এমন উদ্ভট মন্তব্য করা সম্ভব বলে মনে করেন নসরুল হামিদ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বির্নিমার্ণে কাজ করে যাচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ব অস্থিরতায় মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে, বাংলাদেশ এর বাইরে নয়। বৈশ্বিক জ্বালানী সংকটের মাধ্যে বাংলাদেশ সাধ্যমত নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে বদ্ধ পরিকর বলেও দাবি করেন তিনি।’

তিনি আরো বলেন, ‘জনগণের জীবনমান উন্নয়ন ও ডিজিটাল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকারে আমলেই হয়েছে। রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের আগে বাংলাদেশ ভাল ছিলো, বিদ্যুৎ সংকট ছিলো না। জনগণকে আর এক মাস ধৈর্য্য ধারণের আহ্বান জানান মন্ত্রী। আর এক মাস পরে পরিস্থিতির উন্নতি হবে বলে আশাবাদ জানান বিদ্যুৎ ও জ্বালানী প্রতিমন্ত্রী।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহীন আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক ম.ই মামুন। প্রধান বক্তা ছিলেন ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজী মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন। আলোচনা সভা উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে হাজার হাজার আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মী অংশ নেন।

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত