পদ্মা সেতু: অহংকারের প্রতীক

1431

Published on ফেব্রুয়ারি 13, 2022
  • Details Image

হীরেন পণ্ডিতঃ

আগামী ৩০ জুন পদ্মা সেতু খুলে দেয়ার লক্ষ্যে এখন চলছে ফিনিশিংয়ের কাজ। ২০২০ সালের ১০ ডিসেম্বর সেতুতে সর্বশেষ ৪১তম স্প্যান স্থাপনের পরে একে একে বসানো হয় রেলওয়ে স্ল্যাব ও রোডওয়ে স্ল্যাব। ৬.১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ মূল সেতুর আটটি এক্সপানশন জয়েন্টের মধ্যে সব কটিরই কংক্রিটিং সম্পন্ন হয়েছে। আর দুটি জয়েন্টও স্থাপন হয়ে গেছে। তাই পদ্মা সেতু দিয়ে এখন যান চলাচল করতে পারছে। প্রাণের পদ্মা সেতুর শেষ পর্যায়ের কাজ দেখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ রেহানাকে নিয়ে সম্প্রতি পদ্মা সেতু পরিদর্শনে যান।

পদ্মা সেতু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নের একটি প্রকল্প। পদ্মা সেতু বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের স্বপ্ন। বছরের পর বছর বিচার ও কষ্টের পর এই সুন্দর স্বপ্ন এখন বাস্তবায়নের কাছাকাছি বলা যায়, কাজ প্রায় শেষের দিকে। টেন্ডার প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করার পর, সেতু কর্তৃপক্ষ মূল সেতু, নদী ব্যবস্থাপনা এবং তদারকি কনসালটেন্সি ঠিকাদারদের কাজের আদেশ জারি করে। ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে প্রধানমন্ত্রী সেতুর নির্মাণকাজ উদ্বোধন করেন। ২০১৬ সালে নদীর উপর সেতুর প্রথম স্প্যান বসানো হয়।

মূল সেতুর প্রকৃত অগ্রগতি ৯৫ শতাংশ এবং আর্থিক অগ্রগতি ৯১ দশমিক ২৮ শতাংশ। নদীশাসনের প্রকৃত অগ্রগতি ৬ শতাংশ এবং আর্থিক অগ্রগতি ৭ দশমিক ৩৬ শতাংশ। সড়ক ও সেবা এলাকার সংযোগের কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। মাওয়া এবং জাজিরাতে ৪৩৮টি সুপার টি গার্ডার এবং ৬৪টি রেলওয়ে আই গার্ডার (অর্থাৎ ১০০%) রয়েছে। কার্পেটিং, আলোকসজ্জা এবং অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাজ শেষ হওয়ার পরে ২০২২ সালের জুনে সড়ক সেতুটি যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। পদ্মা সেতু হবে একটি নান্দনিক দ্বিতল সেতু। নিচ দিয়ে চলবে রেলগাড়ি। এই সেতু চালু হলে দক্ষিণাঞ্চলের ২১টি জেলার সঙ্গে যোগাযোগ সহজ হবে।

পদ্মা সেতুর অর্থনৈতিক প্রভাব বিশ্লেষণে বলা হয়েছে, সেতুটি নির্মাণের ফলে যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজতর হবে, ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে এবং দক্ষিণাঞ্চলে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠবে, দেশের জিডিপি বছরে ১ দশমিক ২ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে এবং দক্ষিণাঞ্চলীয় জিডিপি ২.৫ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেতে পারে।

সেতুটি নির্মাণ হলে দেশের সমন্বিত যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি হবে। ঢাকা থেকে মাওয়া-ভাঙ্গা-যশোর-খুলনা রেল সংযোগ স্থাপন করা হবে। ঢাকা থেকে খুলনা, মংলা, বরিশাল, কুয়াকাটা অর্থনৈতিক করিডোর খুলে যাবে। দেশের দক্ষিণাঞ্চল ট্রান্স-এশিয়ান হাইওয়ে এবং ট্রান্স-এশিয়ান রেলওয়ের সঙ্গে যুক্ত হবে। ভারত, ভুটান ও নেপালের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন করা হবে এবং যাত্রী ও পণ্য পরিবহনের সুবিধা হবে।

নতুন অর্থনৈতিক অঞ্চল ও হাইটেক পার্ক স্থাপনের ফলে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট হবে এবং দেশের শিল্পায়ন ত্বরান্বিত হবে। পর্যটন শিল্পের ব্যাপক উন্নতি হবে এবং মাওয়া ও জাজিরায় গড়ে উঠবে নতুন রিসোর্ট ও হোটেল, শপিংমল, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ইত্যাদি। মংলা ও পায়রা বন্দর চালু থাকবে, যা ব্যবহার করতে পারবে কটি প্রতিবেশী দেশ।

২০১০ সালের হিসাব অনুযায়ী, পদ্মা নদীর যেখান দিয়ে প্রতিদিন ১২ হাজার যানবাহন চলাচল করে সেখানে সেতুটি চালু হলে যান চলাচল দ্বিগুণ হতে পারে এবং প্রতি বছর যানবাহনের সংখ্যা ৬-৭ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে এবং ২০৫০ সালের মধ্যে ৬ হাজার যানবাহন চলাচল করবে। প্রতিদিন চলাচলের এই সংখ্যা বাড়তে পারে। কারণ, যমুনা বঙ্গবন্ধু সেতু নির্মাণের আগে সেতুর ওপর দিয়ে আনুমানিক যানবাহন চলাচলের হিসাব থাকলেও এখন প্রায় ২৩ বছর পর সেখানে যানবাহন বেশি হচ্ছে। অর্থনৈতিক প্রভাবও প্রত্যাশার চেয়ে বেশি হয়েছে। সেতুতে চলাচলকারী যানবাহন থেকে টোল আদায় দিন দিন বাড়ছে।

নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের সাহসী সিদ্ধান্ত উন্নয়ন সহযোগী ও দেশগুলোর দৃষ্টিভঙ্গিতেও ইতিবাচক পরিবর্তন এনেছে। বিশ্বব্যাংকসহ উন্নয়ন সহযোগীরা বুঝতে পেরেছে পদ্মা সেতু প্রকল্প থেকে সরে এসে ভুল করেছে। এখন উন্নয়ন সহযোগীরা বাংলাদেশে মেগা প্রকল্পে বিনিয়োগ করছে। মেট্রোরেল, মাতারবাড়ি গভীর সমুদ্রবন্দর, বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতো মেগা প্রকল্পে ঋণ দিচ্ছে জাপান। পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নের অভিজ্ঞতা বাংলাদেশ সরকার, বিশেষজ্ঞ এবং প্রকৌশলীদের মেগাপ্রকল্প বাস্তবায়নে আত্মবিশ্বাসী করে তুলেছে। বর্তমানে দেশে ১০-১২টি মেগা প্রকল্প চলছে যার পথিকৃৎ পদ্মা সেতু প্রকল্প।

পদ্মা সেতু এখন দৃশ্যমান। গর্বের সেতু আজ দাঁড়িয়ে আছে। নিজস্ব অর্থে পদ্মা সেতু নির্মাণের ফলে সারা বিশ্বে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সম্ভাবনা ও ভাবমূর্তি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর একটি সাহসী সিদ্ধান্ত তাকে একজন আত্মবিশ্বাসী, দৃঢ়প্রতিজ্ঞ রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দিয়েছে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি, ধারাবাহিক জিডিপি প্রবৃদ্ধি এবং বিভিন্ন সামাজিক সূচকে বাংলাদেশের অবস্থানের উন্নতি আজ আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। এই সেতুর জন্য প্রধানমন্ত্রী, তার পরিবারের সদস্য, অভিযুক্ত মন্ত্রী, উপদেষ্টারা যে ত্যাগ স্বীকার করেছেন, পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নের সফলতায় সেই ত্যাগ স্বীকার করেছেন।

২০২২ সালের জুনে সেতুটি চালু হয়ে গেলে, এটি রাজধানী এবং ২১টি দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় জেলার মধ্যে একটি সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপন করবে, যা এই জেলার ক্ষুদ্র অর্থনীতির পাশাপাশি দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে একটি বিশাল উৎসাহ দেবে। এটি এমন কিছু জেলার সঙ্গে রেল যোগাযোগ স্থাপন করবে যেখানে বর্তমানে কোনো রেল যোগাযোগ নেই। এটি সেসব জায়গায় অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড তৈরি করবে, কর্মসংস্থান ও ব্যবসার সুযোগ উন্মুক্ত করবে মানুষ ও দেশকে সাহায্য করবে।

একটি রাষ্ট্রের বিভিন্ন অঞ্চলের উন্নয়নের পূর্বশর্ত হলো সেই অঞ্চলগুলোর জন্য একটি উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা। রাজধানী ও দেশের পূর্বাঞ্চলের সঙ্গে দেশের উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের মধ্যে সহজ যোগাযোগের জন্য যমুনা নদীর ওপর ৪.৬ কিলোমিটার দীর্ঘ বঙ্গবন্ধু সেতু নির্মাণ করা হয়। ১৯৯৭ সালে সড়ক সেতুর নির্মাণকাজ শেষ হলে সেতুটি যান চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হয়। যমুনা সেতু নির্মাণের কয়েক বছরের মধ্যেই উন্নত যোগাযোগের সুফল পেতে শুরু করে দেশের উত্তরাঞ্চলের কৃষক, ব্যবসায়ী, শিল্পপতিসহ সাধারণ মানুষ। এ অঞ্চলের অর্থনীতি গতিশীল হচ্ছে।

রাজধানীসহ বাংলাদেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল এবং দেশের পূর্বাঞ্চলের মধ্যে একটি উন্নত ও নিরবচ্ছিন্ন সড়ক ও রেল যোগাযোগ স্থাপনের জন্য পদ্মা নদীর উপর একটি সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা ছিল। জাপান সরকারের সহায়তায় ২০০৫ সালে পদ্মা সেতুর সম্ভাব্যতা সমীক্ষা শেষ হওয়ার পর প্রকল্পটি পরবর্তী সময়ে কারিগরি ও অর্থনৈতিকভাবে সম্ভাব্য হিসেবে বিবেচিত হয়। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারের প্রথম মেয়াদের শেষের দিকে ২০০১ সালের ৪ জুলাই মাওয়ায় সেতুটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

২০০৯ সালের ৮ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ সরকার দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এলে পদ্মা সেতু প্রকল্পের কাজ দ্রুততর করার পদক্ষেপ নেয়া হয়। এই প্রকল্পটিকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার প্রকল্প হিসেবে ঘোষণা করা হয়। মনসেল-ইকম, একটি মার্কিন-নিউজিল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া-ভিত্তিক পরামর্শদাতা সংস্থা, ডিজাইন পরামর্শদাতা হিসেবে নিয়োগ করা হয় প্রকল্পে অর্থায়নের জন্য বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ১ হাজার দুশ মিলিয়ন, এর সঙ্গে ৬ শ ১৫ মিলিয়ন এবং এর সঙ্গে ৪ শ ৩০ মিলিয়নের একটি ঋণচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

২০১০ সালে প্রধান সেতু অবকাঠামো নির্মাণ, নদী ব্যবস্থাপনা এবং তদারকি পরামর্শের দরপত্র এবং প্রস্তাবগুলো বিভিন্ন সময়ে গৃহীত হয় অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি শক্তিশালী মূল্যায়ন কমিটি গঠন করা হয়।

প্রকল্পের এসব কাজের দরপত্র মূল্যায়নের সময় কিছু ক্ষেত্রে বিশ্বব্যাংক টিমের সঙ্গে মতবিরোধ দেখা দিলেও আলোচনা ও চিঠিপত্রের মাধ্যমে তা সমাধান করা হয়। কিন্তু সুপারভাইজরি কনসালটেন্সির মূল্যায়নে স্বার্থান্বেষী মহল বিশ্বব্যাংকের কাছে মিথ্যা অভিযোগ করে। বিশ্বব্যাংক আরও অভিযোগ করেছে যে, যোগাযোগমন্ত্রী স্থানীয় এজেন্ট হওয়ার জন্য প্রাক-যোগ্য ঠিকাদারদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন। অভিযোগের অবিরাম অস্বীকারের কারণে, ২৬ জুন, ২০১২ তারিখে, বিশ্বব্যাংকের বিদায়ী প্রধান রবার্ট জেলিক, সেতুর জন্য ঋণচুক্তি বাতিল করেন।

২০১২ সালের জুলাইয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নেন যে, সরকার তার তহবিল দিয়ে পদ্মা সেতু নির্মাণ করবে। পরে পদ্মা সেতু প্রকল্পে ফেরার জন্য বিশ্বব্যাংককে ২০১৩ সালের ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত সময় দেন প্রধানমন্ত্রী। অবশেষে প্রধানমন্ত্রী বিশ্বব্যাংকের ঋণ প্রত্যাখ্যান করে তার অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘোষণা দেন। আরও তদন্তের পর, ২০১৬ সালে, কানাডিয়ান সুপ্রিম কোর্টও ‘ভিত্তিহীন’ তথ্যের ভিত্তিতে মামলাটি খারিজ করে দেয়। বাংলাদেশ কলঙ্কমুক্ত হয়। প্রধানমন্ত্রীর ‘চ্যালেঞ্জ’ জয় লাভ করে।

বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল দেশের পথে। তাছাড়া পদ্মা সেতু শুধু একটি সেতুই নয়, এটি আমাদের উন্নয়ন, অহংকারের প্রতীক। আত্মমর্যাদা, আত্মপরিচয়, যোগ্যতা সর্বোপরি বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার প্রত্যয়ের ফসল। অহংকার ও অহংকারের এই সেতুর নাম ‘শেখ হাসিনা সেতু’ চেয়ে সম্প্রতি হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করা হয় । সংসদে, সংসদের বাইরে বার বার প্রস্তাব উত্থাপিত হয়েছে। তবে প্রতিবারই প্রধানমন্ত্রী বিনয়ের সঙ্গে ইঙ্গিতপূর্ণ জবাব দিয়েছেন তিনি এটা চান না। এটা শেখ হাসিনার উদারতা। বিশ্বের অন্যতম সুখী দেশের পথে বাংলাদেশও উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে।

লেখক: প্রাবন্ধিক ও রিসার্চ ফেলো, বিএনএনআরসি

সৌজন্যেঃ নিউজবাংলা

 

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত