জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে স্বেচ্ছাসেবক লীগের উদ্যোগে স্মরণ সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

533

Published on সেপ্টেম্বর 1, 2021
  • Details Image

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬ তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে মিরপুর থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের উদ্যোগে আজ ৩১ আগস্ট ২০২১ তারিখ বেলা ৩ টায় মিরপুর বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ অডিটোরিয়ামে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকের নির্মম বুলেটে নিহত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ সকল শহীদের স্মরণে মিলাদ মাহফিল ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মাননীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা জননেতা আগা খান মিন্টু। তিনি বলেন স্বাধীনতার পরাজিত শত্রুর সাথে হাত মিলিয়ে মীরজাফর বিশ্বাসঘাতক খুনি মোস্তাক ও জিয়া পরিকল্পিত ভাবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কে স্বপরিবারে হত্যা করে রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করে। খুনিদের পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারী করে জাতির পিতার হত্যার বিচারের পথ রুদ্ধ করে। জাতির পিতা হত্যার সাথে জড়িত পলাতক খুনি এবং হত্যাকান্ডের নেপথ্যে থাকা কুশীলবদের এখনো মুখোশ উন্মোচন করা হয়নি। জাতির পিতার পলাতক খুনি ও ২১ শে আগস্টের খুনিদের দ্রুত বিচারের রায় কার্যকরের মধ্য দিয়ে জাতিকে কলংকমুক্ত করার আহবান জানান তিনি।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ। তিনি বলেন শোকের মাস আমাদের বেদনার মাস। আগস্ট, ডিসেম্বর, মার্চ মাস আসলেই স্বাধীনতা বিরোধী সাম্প্রদায়িক অপশক্তি চক্রের গাত্রদাহ শুরু হয়। সারাবাংলাদেশে হাজার হাজার শোক সভা করে সেই অপশক্তিকে ধিক্কার জানানো হয়! তাদের অপকর্মের কথা বলা হয়। শোককে শক্তিতে পরিণত করার মধ্য দিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে নতুন প্রজন্মের সামনে সঠিক ইতিহাস তুলে ধরবো। 

বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক একেএম আফজালুর রহমান বাবু। তিনি বলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যায় জড়িত জিয়াউর রহমানের কথা বললেই বিএনপি নেতাদের গাত্রদাহ শুরু হয়! জিয়াউর রহমান যদি বঙ্গবন্ধু হত্যায় জড়িত না থাকতেন তাহলে কেন সেদিন ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারী করে জাতির পিতার হত্যাকান্ডের বিচারের পথ রুদ্ধ করেছিলেন! কেন স্বাধীনতা বিরোধী যুদ্ধাপরাধী রাজাকার আব্দুল আলীম, শাহ আজিজদের গাড়ীতে ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তে ভেজা লাল সবুজের পতাকা তুলে দিয়েছিলেন। রাজাকারের সাথে তাদের এত কিসের প্রেম ছিল! কেন খুনীদের যোগ্যতা না থাকা সত্বেও বিভিন্ন দূতাবাসে চাকুরী দিয়ে প্রতিষ্ঠিত করেছে। এই প্রশ্নের জবার তারা দিতে পারবে না! হত্যা ক্যু ষড়যন্ত্রের রাজনীতি শুরু করেছিল খুনি জিয়াউর রহমান। তার ছেলে তারেক জিয়া ২১শে আগস্টের গ্রেনেড হামলা করে ২৪ জন নেতাকর্মীকে নৃশংস ভাবে হত্যা করে বিদেশে পালিয়ে আছে! তারেক জিয়ার উদ্দেশ্যো বলেন আপনি নিজেই জানেন আপনি ২১ শে আগস্টের খুনের সাথে জড়িত।  তিনি ২১ শে আগস্টের কুশীলবদের বিচারের আওতায় আনার দাবি করে বলেন গ্রেনেড হামলার মূল পরিকল্পনাকারী তারেক জিয়াকে ফাঁসী দিতে হবে।

জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মেগা প্রকল্প সমুহ বাস্তবায়নের পথে। তিনি সকলের নিকট মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্য দোয়া চান। জননেত্রী শেখ হাসিনা বেঁচে থাকলে বাংলাদেশ উন্নত সমৃদ্ধ দেশে পরিনত হবে, ইনশাল্লাহ।

এসময় আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ সহ সভাপতি গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোবাশ্বের চৌধুরী, ঢাকা মহানগর উত্তর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি ইসহাক মিয়া, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল সায়েম, গ্রন্থণা ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক কেএম মনোয়ারুল ইসলাম বিপুল, উপ ত্রাণ ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক সম্পাদক মূর্তুজা হায়দার শরীফ।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু মুজিবের স্মরণে কেন্দ্রীয় সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক হাসান মতিউর রহমানের লেখা কালজয়ী গান যদি রাত পোহালে শোনা যেত বঙ্গবন্ধু মরে নাই। গানটি সমবেত সকলে সমস্বরে হাসান মতিউর রহমানের সাথে পরিবেশন করেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মিরপুর থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি মোজাম্মেল হোসেন শরীফ, সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম খান। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় ও মহানগর উত্তর, এবং মিরপুর থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের অসংখ্য নেতাকর্মী।

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত