‘জিয়াউর রহমান ছদ্মবেশী এজেন্ট হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন’

1194

Published on আগস্ট 14, 2021
  • Details Image

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন, কেন কী কারণে বঙ্গবন্ধুর মতো মহান এই নেতাকে হত্যা করা হয়েছে? এটা শুধু রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখলের জন্য হয়নি। পৃথিবীর অনেক দেশেই ক্ষমতা দখলের জন্য অনেক সময় রাষ্ট্রনায়ককে হত্যা করার নিদর্শন আছে। কিন্তু বঙ্গবন্ধু না হয় রাষ্ট্রনায়ক ছিলেন, শেখ রাসেল তো কোনও অন্যায় করেনি? ছোট্ট শিশু ছিল, মাত্র ৯ বছর বয়স। তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের কী অপরাধ  ছিল?

শুক্রবার (১৩ আগস্ট) বিকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস স্মরণে সংগঠনটি এই আলোচনা সভা, দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে।

হানিফ বলেন, ‘এই হত্যাকাণ্ড ছিল একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় যে পাকিস্তান এবং পৃষ্ঠপোষকরা পরাজিত হয়েছিল, তাদের পরাজয়ের চরম প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছিল। এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছিল বাংলাদেশের  স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বকে হত্যার জন্য। এই বাংলাদেশকে আবারও পরাধীন রাষ্ট্র তৈরি করার জন্যই।’

তিনি বলেন, ‘কারা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ছিল! আত্মস্বীকৃত খুনি কর্নেল রশিদ, ফারুক, মেজর হুদা, পাশাসহ অনেকেই যাদের বিচার হয়েছে।’ কিন্তু এখনও অনেকে বিদেশে পলাতক রয়েছে, তাদেরকে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করার আহ্বান জানান তিনি।

মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, ‘আমরা চাই, যে বিষয় কখনও সামনে আসেনি,  এই  আত্মস্বীকৃত খুনিদের সঙ্গে চক্রান্তকারী হিসেবে  কে  এবং কারা  নেপথ্যে জড়িত আছে। নেপথ্য কুশীলব কে ছিল? সেটা ছিল খুনি জিয়াউর রহমান।’

তিনি বলেন, ‘জিয়াউর রহমান কখনোই মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না বলে যুদ্ধের সময় ছদ্মবেশী এজেন্ট হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। জিয়াউর রহমান ছিলেন পাকিস্তানের এজেন্ট এবং এজেন্ট থেকেই এই দেশে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মেইন কুশীলব-চক্রান্তকারী হিসেবে উনি কাজ করে গেছেন।’

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে হানিফ বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিদের বিচার হয়েছে। আশা করি, যারা বিদেশে পলাতক আছে, তাদেরও দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করা হবে। জননেত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুকন্যা তার পিতার হত্যার বিচারের রায় কার্যকর করেছেন। কিন্তু আমরা বাঙালি জাতি  আমাদের জাতির পিতার হত্যার মেইন কুশীলব যতক্ষণ পর্যন্ত বের করতে না পারবো, তাদের মুশোখ উন্মোচন করতে না পারবো, ততক্ষণ পর্যন্ত আমাদের দায়মুক্ত হবে না।’

তিনি বলেন, ‘আজকে যারা ভবিষ্যৎ প্রজন্ম, যারা কিশোর- কিশোরী তাদের দায়িত্ব হচ্ছে, বঙ্গবন্ধু হত্যার  এই আত্মস্বীকৃত খুনিদের পেছনে কারা জড়িত ছিল, সেই খুনি জিয়াউর রহমানসহ যারা জড়িত ছিল, তাদের মুখোশ উন্মোচন করে বিভাজিত জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করার দায়িত্ব তাদের নিতে হবে। তাহলেই আমরা জাতির পিতার স্বপ্ন সেই সোনার বাংলা  গড়তে পারবো।’ সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষের চেতনার অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে পারবো।’

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত