মহাকাব্যের তুমি মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব

2315

Published on জানুয়ারি 7, 2021
  • Details Image

অধ্যাপক মেরিনা জাহানঃ

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব যার নামের সঙ্গে মিশে আছে বাঙালির আত্মপরিচয়। তিনি সেই মহান পুরুষ যাকে নিয়ে বাঙালীর অহং কার কোনদিন শেষ হবে না। এমনই বিশাল ব্যক্তিত্ব তিনি মৃত্যুও চার দশক পরও তাঁকে আবিষ্কার করতে হয় নতুনভবে।

১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারী নতুন সূর্যোলোকের সূর্যের মতো চির ভাস্কর উজ্জল নেতা ইতিহাসের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ফিরে আসেন তাঁর প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশে। মহান ভাষা আন্দোলনের সূচনা থেকে বাঙালির জাতিসত্ত্বা বিকাশের প্রতিটি আন্দোলনে শেখ মুজিব ছিলেন অগ্রনায়ক।

বাঙালির জীবনের শ্রেষ্ট সময় একাত্তর শ্রেষ্ট ঘটনা মুক্তিযুদ্ধ আর শ্রেষ্ট অর্জন স্বাধীনতা। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের মূল লক্ষ্য ছিল বাঙালি জাতির আত্মমর্যাদার স্বীকৃতি, বাংলা ভাষার সার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি এবং বাঙালি সংস্কৃতির উদ্বোধনের সংগ্রাম। নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ অর্মত্য সেন মন্তব্য করেন “ বঙ্গবন্ধু শুধু বাঙালির বন্ধু ও অধিনায়ক ছিলেন না, তিনি ছিলেন মানব জাতির পথ-প্রদর্শক ও মহান নেতা-বিশ^ শান্তির প্রতকি।” বঙ্গবন্ধু প্রজ্ঞা শুধু রাজনৈতিক স্বাধীনতাতেই সীমাবদ্ধ ছিল না। তিনি চেয়েছিলেন বহুদলীয় গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা, সার্বজনীন শিক্ষা ব্যবস্থা, সব মানুষের মানবাধিকারের স্বীকৃতি।
বাংলাদেশের মাটিতে মৌলবাদ বা পাকিস্তানিদের তৎপরতা যত বাড়বে তত দ্রুত বাঙালির আশ্রয় খুঁজতে হবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের কাছে। সেই সঙ্গে আশ্রয় খুঁজতে হবে মুক্তিযুদ্ধের চেনার কাছে- যে মুক্তিযুদ্ধেকে আমরা হৃদয়ে ধারণ করেছি পরম মমতা ও অহংকারে। বঙ্গবন্ধুর কাছ থেকে আমরা আমাদের শোকের সন্তনা ও সংগ্রমের সাহস পায়। তাই বাঙালির জানতে হলে, বাঙালির হাসি-কান্না আনন্দ বেদনাকে উপলদ্বি করতে হলে- আমাদের ফিরে ফিওে যেতে হবে শেখ মুজিবের কাছে। এই মহাপ্রাণকে শ্রদ্ধা জানাতে বিশেষ কোন দলভূক্ত হবার প্রয়োজন আছে বলে মনে করি না। হৃদয়ে যার বাংলাদেশ, যে বাঙালির হৃদয়ে দাসত্ব নেই, পরাধীনতা আর উগ্র ধর্মীয় উন্মাদনা নেই- সেই বাঙালির কাছেই বঙ্গবন্ধু শ্রদ্ধা, ভলোবাসা আর অহংকারের।

তিনি আজ আমাদের প্রত্যাহিকতায় মিশে আছেন- মিশে থাকবেন জাতির অগ্রযাত্রার প্রতিটি অনুভবে-সাহস, শক্তি ও অনুপ্রেরণা হিসেবে। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষনটি বাঙালি জাতি ও বাংলাদেশের ইতিহাসে অনির্বাণ শিখার মত। এই ভাষণ ঘরকুনো নিতান্ত ছাপোষা বাঙালিকে রূপান্তরিত করেছিল বীরের জাতিতে। পশ্চিমা দেশের পর্যবেক্ষকরা তাঁকে চিত্রিত করেন ‘পোয়েট অব পলিট্রিক্স’ তবে শেখ মুজিব একই সঙ্গে ছিলেন ‘পয়েট অব হিউমেনিটি অ্যান্ড জাস্টিস’। রাজানীতিবিদ হিসেবে তাঁর সাংগঠনিক দক্ষতা, ব্যক্তিত্বের সম্মোহনী শক্তি, ত্যাগ ও আদর্শ তাঁকে পরিণত করেছে ইতিহাসের অপ্রতিরোধ্য বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ কিংবদন্তিতে।

কোলকাতার ছাত্র জীবনে শেখ মুজিব থাকতেন ইসলামিয়া হোস্টেলে। সেই হোস্টেল সুপার, দর্শণ শাস্ত্রের অধ্যাপক এবং পরবর্তী সমযে ঢাকা জগন্নাথ কলেজের বিখ্যাত অধ্যক্ষ সাইদুর রহমান স্মতিকথামূলক লেখায় উল্লেখ করেছেন, ছাত্র জীবনের একটি ঘটনায় অভিযুক্ত মুজিব দাড়িয়ে ছিলেন তাঁর সামনে। কিন্তু কৃতকর্মের সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা ও সরল স্বীকারোক্তি প্রদানের ব্যাপারে শেখ মুজিবের সৎসাহস ও ঋজুতা তাঁকে অভিভূত করেছিল। শেখ মুজিবের চারিত্রিক দৃঢ়তা ও স্পষ্টবাদিতা বহুদর্শী অধ্যক্ষকে স্মরণ করিয়ে দিয়েছিল, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জর্জ ওয়াশিংটনের তরুন বয়সের চারিত্রিক অবস্থান ও আত্মবিশ^াসের কথা।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দিন ২৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৮ইং পাকিস্তান আইন পরিষদের ষোষণা করেন, পূর্ব পাকিস্তানীরা রাষ্ট্রভাষা হিসেবে উর্দুকেই মেনে নেবে। ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্র শেখ মুজিব তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ করে রাষ্ট্র ভাষার প্রশ্নে আন্দোলনের প্রস্তুতি শুরু করেছিলেন। পরের বছর ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের বিভিন্ন দাবি আদায়ের ধর্মঘট আন্দোলনের নেতৃত্বে যুক্ত হয়েছিলেন শেখ মুজিব। শাস্তি হিসেবে এ ব্যপারে জড়িট ছাত্রদেরকে জরিমানা করেছিল বিশ^বিদ্যালয় কতৃপক্ষ। অনেকেই জরিমানার শস্তি মেনে নিয়ে ছাত্রত্ব বজায় রেখেছিলেন, কিন্তু মুজিব তীব্র প্রতিবাদে এ আদেশ প্রত্যাখ্যান করায় বিশ^বিদ্যালয় থেকে বহিস্কৃত হয়েছেলেন।

১৯৫৫ সাল পাক-শাসকচক্রের ষড়যন্ত্রে পূর্ব বংলার নাম পরিবর্তন করে পূর্ব পাকিস্তান করা হয়। তখনই পাকিস্তান গণপরিষদে দাঁড়িয়ে বঙ্গবন্ধু সেই পাকিস্তানি মনো বৃত্তির বিরোধিতা করে বলেছিলেন, “বাংলা শব্দটার একটা ইতিহাস আছে, আছে বাংলার ঐতিহ্য। এই নাম পরিবর্তন করতে চাইলে, সেখানকার জনগণের কাছে জিজ্ঞেসা করতে হবে, তারা নাম পরিবর্তনকে মেনে নেবে কিনা”। এরই অবিচল ধারাবাহিকতায়, আইয়ুব খানের সামরিক শাসনাধীন অবস্থাতেও সোহরওয়ার্দীর মৃত্যুবার্ষিকী সবাই ৫ ডিসেম্বও ১৯৬৯ এ মুজিব বলেছিলেন “জনগণের পক্ষ হইতে আমি ঘোষনা করিতেছি- আজ হইতে পাকিস্তানের পূর্বঞ্চালীয় প্রদেশটির নাম পূর্ব পাকিস্তানের পরিবর্তে শুধুমাত্র ‘বাংলাদেশ’।”

বঙ্গবন্ধু নারীর প্রতি আস্থা ও সম্মান দেখিয়েছেন সবসময়। ১৯৭২, ২৬ শে মার্চ আজিমপুর বালিকা বিদ্যালয়ের মহিলা ক্রীড়া সংস্থা অনুষ্ঠানে তিনি তার বক্তব্যে বলেন, “ভাইরা আমার আপনারা যারা সংগ্রাম করে নেতা হন অথবা দেশের কর্ণধার হন- তাদের মনে রাখা উচিত এর পেছনে মহিলাদের অবদান রয়েছে যথেষ্ট তাই নারীদের যথাযথ সম্মানদিন”।

শেখ মুজিবের জীবনে সাফল্যের অন্তরালে বেগম ফজিলাতুননেসা মুজিবের অবদান অতুলনীয়। বঙ্গবন্ধু বলতেন ‘আমর স্ত্রীর মতো সাহসী মেয়ে কমই দেখা যায়। আমকে যখন ‘পিন্ডির ফৌজ বা পুলিশ এসে জেলে নিয়ে যায়, আমার উপর নানা অত্যাচার করে, আমি কবে ছাড়া পেয়ে ফিরে আসবো তা কিছু ঠিক থাকে না- কিন্তু আমার স্ত্রী কখনই ভেঙ্গে পড়ে না সবসময়ই দৃঢ় মনোবল নিয়ে সব কিছু সামাল দিয়েছে’।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব গ্রন্থেও প্রণেতা প্রফেসর মযহারুল ইসলাম তাঁর গ্রন্থটি লিখবার সময় বহুবার তাকে জাতির পিতা সাক্ষাৎকার গ্রহ করতে হয়েছে। এক সাক্ষাৎকারে বঙ্গবন্ধু লেখককে বলেন, ‘আমার জীবনের দুটি বৃহৎ অবলম্বন আছে একটি আমার আত্মবিশ^াস, অপরটি কি? হঠাৎ এরকম প্রশ্নে লেখক বেশ হতচকিত হয়ে যায়। তখন বঙ্গবন্ধু মৃদু হেসে বললেন, ‘অপরটি আমার স্ত্রী, আমার অকৈশোর গ্রহিনী। ’ একজন সংগ্রামী রাজনৈতীক নেতার জীবনে এরকম স্ত্রী যে কত বড় আর্শীবাদ তা সহজেই অনুমেয়। বঙ্গবন্ধুর সাফল্যের বহুল অংশ এই গরীয়সী মহিলার প্রাপ্য। প্রতিবারই জেলে যাবার সময় বঙ্গবন্ধু ‘সঞ্চয়িতা’ টা হাতে তুলে নিতেন। বইতার গায়ে পড়েছিল জেলের সেন্সরের অনেকগুলো সীল। রবীন্দ্র-নজরুলের প্রতি অনুরাগ বঙ্গবন্ধুর সৌখিনতা নয়- এটা তার ব্যক্তি জীবনের খোরাক, মানসিক শক্তির উৎস। তাঁর যে জীবন রাজনৈতিক চেতনায় অভিষিক্ত, সে চেতনারই অভিব্যক্তি প্রকাশের প্রেরল রবীন্দ্র-নজরুলের সাহিত্য। পাকিস্থানিরা যে মুজিবকে হত্যা করতে পারেনি, তাকেই হত্যা করেছিল ষড়যন্ত্রে জড়িত কিছু বাঙালি সেনানায়ক। ঘাতকের উদ্যত বন্দুকের সামনে, অনিবার্য মৃত্যুও মুখেও সাহসী মাথা উঁচু কওে দাঁড়িয়ে ছিলেন মুজিব। অবশ্যই বলা দরকার, পিঠে নয়, ঘাতকের গুলি লেগেছিল মুজিবের বুকেই। তবে নৃশংস প্রতিক্রিয়াশীল ঘাতকেরা জানতো না, তাদের অস্ত্র কখনো বঙ্গবন্ধুর বজ্রকন্ঠকে স্তব্ধ করতে পারবে না। তাঁর বজ্রকন্ঠ চিরকাল প্রতিধ্বনিত হবে, বাঙালির হৃদয়ে, হৃদয়ে। বঙ্গবন্ধু বেঁচে আছেন শোষিত-বঞ্চিত মানুষের প্রাণের গহীনে। বঙ্গবন্ধু বেঁচে আছেন আমাদের লাল-সবুজ পতাকার ক্যানভাস জুড়ে, প্রতিটি বাঙালির মানস পিতা- জাতির পিতা হয়ে। সংগ্রামী কবি সিকান্দার আবু জাফর তাঁর কবিতায় লেখেন।

“মুক্তিকামী মানুষের শুভেচ্ছার পথে
বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জনক শেখ মুজিবুর রহমান
ফিরে আসছেন বাংলাদেশে
করতালি মুখরিত পথে।”

বঙ্গবন্ধুর সবুজ বাংলা, বঙ্গবন্ধু কন্যার সুনীল বাংলা, এই সবুজে সুনীলেই আজ আমাদের সোনার বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ম শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে অগ্রসরমান বাংলাদেশের ইতিহাস এখন ‘নতুন দিনের ভোরে’।

লেখকঃ সদস্য, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ; সাবেক অধ্যক্ষ, বেগম বদরুন্নেছা কলেজ

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত