বাগেরহাটে ধান কেটে দিচ্ছে ছাত্রলীগ-যুবলীগ

1138

Published on এপ্রিল 21, 2020
  • Details Image

বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলায় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সুরক্ষিত কচুয়া কমিটির উদ্যোগে দরিদ্র চাষীদের ধান কেটে দিচ্ছে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ। সোমবার ২০ জনের একটি দল কাকার বিলের তিনজন কৃষকের ধান কাটার মাধ্যমে এই কর্মসূচি শুরু করে।

এসময়, কচুয়া উপজেলা যুবলীগের সদস্য সরদার আক্তারুজ্জামান অনু, জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি শাহরিয়ার রহমান রাসেল, যুবলীগ নেতা সোয়েব ইসলামসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন। পর্যায়ক্রমে আরও অনেক চাষীর ধান কেটে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন নেতাকর্মীরা। এদিকে দেশের এই সংকটের সময় বিনা পারিশ্রমিকে স্বেচ্ছাশ্রমে এভাবে ধান কেটে দেওয়ায় খুশি এলাকাবাসী ও কৃষকরা।

কৃষক মনিরুল ইসলাম ও বাবুল মোল্লা বলেন, ‘ধান কাটার সময় চিন্তিত ছিলাম। হঠাৎ করে সুরক্ষিত কচুয়া কমিটির উদ্যোগে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা ধান কেটে দেওয়ার কথা বলেন। সকালে এসেই ধান কাটা শুরু করেন। আমি খুবই আনন্দিত। আগে কখনও এভাবে কাউকে কাজ করতে দেখিনি। ’

ধান কাটতে আসা যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতারা বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে জাতি এক ধরনের ক্রান্তিকাল পার করছে। এই পরিস্থিতিতে মাঠের বেশিরভাগ কৃষকের ধান পেকে গেছে। শ্রমিক সংকটে চাষীরা ধান কেটে ঘরে নিতে পারছেন না। তাই আমাদের সংসদ সদস্য শেখ তম্ময় ভাইয়ের নির্দেশনায় দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে দরিদ্র চাষীদের ধান কেটে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছি। এটা চলমান থাকবে। ’

এলাকার সংগঠন সুরক্ষিত কচুয়ার প্রধান সমন্বয়কারী অধ্যক্ষ সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘যেসব কৃষকরা ধান কাটতে শ্রমিক সংকটে ভুগছেন, বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ তম্ময়ের নির্দেশে কচুয়া উপজেলার আমরা তাদের তালিকা করেছি। সকালে তালিকা অনুযায়ী ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতা কর্মীরা অর্থ্যাৎ সুরক্ষিত কচুয়া কমিটির স্বেচ্ছাসেবকরা ধান কাটা শুরু করেছে। পর্যায়ক্রমে উপজেলার সকল অসহায় চাষীর ধান স্বেচ্ছাসেবকরা কেটে দিবে।’

বাগেরহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রঘুনাথ কর বলেন, বাগেরহাট জেলায় এবছর ৫২ হাজার ৯৩০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। যার লক্ষ্যমাত্রা ২ লাখ ৪৩ হাজার মেট্রিকটন ধান। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে অনেক কৃষকরা পাকা ধান ঘরে তোলা নিয়ে বেশ সমস্যায় পড়ছে। আমরা দেখছি অনেক সংগঠন কৃষকদের পাকা ধান কেটে দিচ্ছে বিনামূল্যে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর থেকেও কৃষকদের পাকা ধান ঘরে তুলতে লজিস্টিক সাপোর্ট দেওয়া হচ্ছে। ’

এভাবে সবাই এগিয়ে আসলে কৃষকদের কষ্ট লাঘব হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত