বরিশাল ও রাজশাহীতে সহজ জয়ের পথে আওয়ামী লীগ, সিলেটে লড়াই তবে জয়ের পথে নৌকা

7665

Published on জুলাই 29, 2018
  • Details Image

আসন্ন বরিশাল, রাজশাহী ও সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে জয় পেতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ। রাজশাহী ও বরিশালে সহজভাবেই জয়ী হবে দলটি। অন্যদিকে সিলেটে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করেই জিতবে নৌকা। সম্প্রতি একটি স্বায়ত্বশাসিত গবেষনা সংস্থা ‘রিসার্চ ডেভেলপমেন্ট সেন্টার (আরডিসি)’ এর জরিপে এই তথ্য উঠে এসেছে। পুরো জুলাই মাস জুড়ে তিনটি ভিন্ন ভিন্ন জরিপে এই ফলাফল পেয়েছে সংস্থাটি।

বরিশাল

বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে ১,২৪১ জন ভোটারের ওপর জরিপ পরিচালনা করে আরডিসি। কাকে ভোট দিবেন, এই প্রশ্নের জবাবে ৪৪ শতাংশ ভোটার আওয়ামী লীগ এর মনোনীত প্রার্থী সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ’র পক্ষে রায় দেন। অন্যদিকে বিএনপি’র প্রার্থী মুজিবুর রহমান সরোয়ারের পক্ষে রায় দেন ১৩.১ শতাংশ ভোটার। অন্যান প্রার্থীদের পক্ষে রায় দেন ০.৮ শতাংশ ভোটার। জরিপে দেখা যায় সিদ্ধান্তহীন ভোটার ২৩.৫ শতাংশ এবং উত্তর দিতে রাজি ছিলেননা ১৫.৯ শতাংশ। যারা সিদ্ধান্ত নেননি এবং যারা উত্তর দেননি তাদের মধ্যে ৯০ শতাংশ যদি বিএনপির পক্ষে রায় দেন, তাহলে এই বরিশাল সিটিতে বিএনপি কিছুটা আশাবাদী হতে পারে যা প্রায় অসম্ভব বলা চলে। তাই বরিশালে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সহজ জয়ের দিকেই এগোচ্ছেন বলে জানাচ্ছে এই জরিপ।

রাজশাহী

রাজশাহী সিটিতে ১,২৯৪ জন ভোটারের কাছে কাকে ভোট দিবেন জানতে চাইলে এর মধ্যে ৫৮ শতাংশ উত্তর আসে আওয়ামী লীগের প্রার্থী খায়রুজ্জামান লিটনের পক্ষে। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি’র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের পক্ষে উত্তর দিয়েছেন ১৬.৪ শতাংশ। অন্যান্য প্রার্থীদের পক্ষে রায় গিয়েছে ০.৯ শতাংশ। এর মধ্যে যারা সিদ্ধান্তহীন (১২.৩%) এবং যারা উত্তর দেননি (৯.৬%) তারা সবাই যদি বিএনপি’র পক্ষে রায় দেন, তারপরেও আওয়ামী লীগের প্রার্থী ২০ শতাংশ ভোটে এগিয়ে থাকেন। অর্থাৎ, রাজশাহী সিটিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী খুব সহজেই জয় পেতে যাচ্ছেন বলে জানাচ্ছে জরিপটি।

সিলেট

সিলেট সিটি কর্পোরেশনে ১,১৯৬ জন ভোটারের ওপর চালানো জরিপে ৩৩ শতাংশ ভোটার আওয়ামী লীগ প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমেদ কামরানের পক্ষে রায় দিয়েছেন এবং ২৮.১ শতাংশ ভোটার বিএনপির প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর পক্ষে রায় দিয়েছেন। অন্যান্য প্রার্থীদের পক্ষে রায় দিয়েছেন ১.৩ শতাংশ ভোটার। জরিপে দেখা যায় সিদ্ধান্তহীন ভোটার ২৩ শতাংশ এবং উত্তর দিতে রাজি ছিলেননা ১২.৬ শতাংশ ভোটার। জরিপে যদিও আওয়ামী লীগের প্রার্থী এগিয়ে রয়েছেন তবে এই সিটিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা বেশি হবে বলে এই জরিপে উঠে এসেছে।

জরিপ পদ্ধতি

সিটি কর্পোরেশনের ভোটার তালিকার নারী ও পুরুষ ভোটারের অনুপাত এবং বরিশাল, রাজশাহী ও সিলেট শহরের ২০১১ সালের শুমারির বয়স সম্পর্কিত তথ্যের বিন্যাস অনুযায়ী এই জরিপের ফলাফল উপস্থাপন করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের ভোটার তালিকা থেকে ঠিকানা নিয়ে জরিপের জন্য নমুনা বাছাই করা হয়। এর মধ্য থেকে যারা নিজেদেরকে সিটি কর্পোরেশনের ভোটার বলে নিশ্চিত করেন তাদেরকেই জরিপে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এই জরিপে ভুলের মাত্রা (Margin of Error) ধরা হয় +/-২.৫।

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত